রাজধানীতে তুচ্ছতাচ্ছিল্যে পরিণত ৯ম দিনের লকডাউন

রাজধানীতে ভেস্তে
গেছে  ৯ম দিনের লকডাউন। শিল্প-কারখানা
খোলার ঘোষণায় রাজধানীতে হুমড়ি খেয়ে পড়ছে কর্মজীবীরা। ফেরীঘাটে দেখা দিয়েছে
জনস্রোত। সড়ক-মহাসড়কে  বেড়েছে ঢাকামুখী মানুষের চাপ। যানচলাচল
বন্ধ থাকলেও নানা উপায়ে বিভিন্ন প্রবেশপথ দিয়ে বানের জলের মতো আসা-যাওয়া চলছে। বাস
বন্ধ রেখে হুট করে কারখানা খোলার সিদ্ধান্তে ক্ষোভ জানিয়েছেন অনেকে।

লকডাউনের
৯ম দিনে দেশের ফেরিঘাটের চিত্র এটি। শিল্প কারখানা খুলছে, সরকারের এমন ঘোষণার পর
যে-যেভাবে পারছেন ফিরছেন রাজধানীতে।

ফেরি
পারাপারের পর্ব শেষ করে যাত্রায় এবার সড়ক পথ। সেখানে গাড়ি চলাচল না থাকায় পায়ে
হেটে কেউবা আবার ট্রাক, পিকাপে করেও ফিরছেন রাজধানীতে।

দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে
বেশি ভাড়া গুনে ছোট ছোট যানবাহনে  করে,
কেউবা পায়ে হেটে রাজধানীতে প্রবেশ করছেন। গণপরিবহন বন্ধ রেখে কারখানা খুলে দেয়ার
সিদ্ধান্তে ক্ষোভ জানান পোশাক শ্রমিকরা।

নাটোরের বনপাড়া বাইপাস মোড়ে
মানুষের উপচেপড়া ভিড়। স্বাস্থ্যবিধি পালন নয় বরং সবার
লক্ষ্য, দ্রুত কর্মস্থল ঢাকায় ফেরা। কিন্তু যানবাহন সংকটে নাজেহাল হতে হচ্ছে
সবাইকে।

গণপরিবহন বন্ধ
থাকায় গাজীপুরে বিপাকে পড়ছেন পোশাক শ্রমিকরা। হালকা যান কিংবা দীর্ঘ পথ পায়ে হেঁটে গন্তব্যে
ছুটছেন তারা।

এদিকে, রাজধানীর প্রবেশপথে ব্যাক্তিগত পরিবহন বেড়ে যাওয়ার পাশাপাশি লোকসমাগমের চাপ সামাল দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের।

অন্যদিকে, রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় মাস্ক ছাড়া যারা রাস্তা বের হয়েছেন
তাদের জরিমানার আওতায় আনছে ভ্রাম্যমান আদালত।

সবার মাঝে সচেতনতাবোধ জাগ্রত
না হলে কেবল আইন দিয়ে করোনা সংক্রমণ রোধ করা সম্ভব নয় বলেও মনে করেন নির্বাহী
হাকিম কানিজ ফাতেমা।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author