সামরিক অভ্যুত্থান ও গণতন্ত্রকামীদের ওপর হামলার দায়ে মিয়ানমার সরকারের চার মন্ত্রীসহ ২২ জনের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে মার্কিন প্রশাসন।

শুক্রবার (২ জুলাই) মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর গুরুত্বপূর্ণ কর্মকর্তাদের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার পাশাপাশি ৪টি কোম্পানিকেও যুক্তরাষ্ট্র কালো তালিকাভুক্ত করেছে বলে রয়টার্স জানিয়েছে।

আল জাজিরার খবর বলা হয়, এই দফায় মার্কিন নিষেধাজ্ঞাপ্রাপ্তদের মধ্যে
রয়েছেন মিয়ানমার জান্তার তথ্যমন্ত্রী চিট নাইং, বিনিয়োগমন্ত্রী অং নাইং ও,
শ্রম ও অভিবাসন মন্ত্রী মিন্ট কিয়ায়িং এবং সামাজিক উন্নয়ন মন্ত্রী থেট থেট
খাইন।

এছাড়া কর্মকর্তাদের স্ত্রী-সন্তানসহ আরও ১৫ জনের ওপর বিধিনিষেধ আরোপ
করেছে মার্কিন প্রশাসন। এর আগে গত ফেব্রুয়ারি, মার্চ এবং মে মাসে কয়েক দফায়
মিয়ানমার জান্তার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিল তারা।

মার্কিন রাজস্ব ও বাণিজ্য বিভাগ জানিয়েছে, গত ফেব্রুয়ারিতে মিয়ানমারের
নির্বাচিত গণতান্ত্রিক সরকারকে উৎখাত করে ক্ষমতা দখলের শাস্তি হিসেবে
জান্তার বিরুদ্ধে এই নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে।

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিনকেন এক বিবৃতিতে বলেছেন, এই
নিষেধাজ্ঞায় মিয়ানমারের সাধারণ নাগরিকদের লক্ষ্যবস্তু করা হয়নি। বরং
দেশটিকে দ্রুততম সময়ে গণতন্ত্রের পথে ফিরিয়ে নিতে সামরিক বাহিনীর ওপর চাপ
সৃষ্টি করার লক্ষ্যেই এই পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।

কালো তালিকাভুক্ত করা হয়েছে ওয়ানবাও মাইনিং লিমিটেড এবং তার দুটি শাখা প্রতিষ্ঠান মিয়ানমার ওয়ানবাও মাইনিং কপার লিমিটেড ও মিয়ানমার ইয়াং সে কপার লিমিটেডকে। কালো তালিকায় ঢোকা অন্য কোম্পানিটি হচ্ছে কিং রয়েল টেকনোলজিস লিমিটেড।

অন্যদিকে সাবেক স্টেট কাউন্সিলর অং সান সুচি ও প্রেসিডেন্ট উইন মিন্টসহ কারাবন্দিদের মুক্তি দিতে জান্তা সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন জাতিসংঘ।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author