বাংলাদেশে পুরুষের তুলনায় নারীদের করোনায় আক্রান্তের হার এক তৃতীয়াংশেরও কম বলে জানিয়েছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বেশি এবং অধিক কর্মদক্ষতার কারণে পার পেয়ে যাচ্ছেন নারীরা। আর পুরুষের বেশি আক্রান্তের পেছনে ভিটামিন ডি’র স্বল্পতা, ধূমপান এবং হরমোনজনিত সমস্যাকে দায়ী করেছেন বিশেষজ্ঞরা।

করোনাভাইরাস সংক্রমণের শুরু থেকেই দেশে পুরুষের তুলনায় নারীর আক্রান্ত হার কম। প্রাণহানির ক্ষেত্রেও একই চিত্র। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, নারীর তুলনায় উচ্চ ঝুঁকিতে পুরুষ।

আর বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্যমতে, বাংলাদেশে করোনাক্রান্তদের ৭০ শতাংশ পুরুষ আর ৩০ শতাংশ নারী। করোনাকালে সামগ্রিক চিত্র ঘাঁটলে দেখা যায়, জ্বর-কাশির সমস্যা থাকলেও তা সহজেই কাটিয়ে উঠছেন নারীরা। এমনকী করোনাক্রান্ত হলেও জটিলতা হচ্ছে পুরুষের তুলনায় কম।

সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ
ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান বলছে, নারীদের নমুনা পরীক্ষার হারও কম এবং তাদের করোনার
উপসর্গও মৃদু। কারণ তাদের বাইরে যাতায়াত সীমিত। করোনা থেকে নারীদের রক্ষায়
অ্যান্টিবডি ও হরমোনগত বিষয়টিও নিয়ামক হিসেবে কাজ করছে।

চিকিৎসকরা বলছেন, যারা
অতিমাত্রায় ধুমপান করেন, তাদের রক্তনালী সরু হয়ে যায়। পুরুষরা যেহেতু বেশি ধুমপান
করেন তাই করোনায় আক্রান্ত হলে নারীর চেয়ে তাদের জটিলতার মাত্রাটাও বেশি।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author