ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাবে পদ্মার পানি রেড়ে যাওয়ায় ফরিদপুর সদর উপজেলার গোলডাঙ্গী ও আশপাশের এলাকায় বেড়েছে ভাঙনের তীব্রতা। এরইমধ্যে নদীতে বিলীন হয়েছে বিভিন্ন স্থাপনা। ঝুঁকিতে বাড়িঘর,সেতুসহ বিভিন্ন স্থাপনা এবং কয়েক হাজার একর ফসলি জমি। ভাঙনরোধে ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দিয়েছে জেলা প্রশাসন ও পানি উন্নয়ন বোর্ড।

ফরিদপুর সদর উপজেলার ডিক্রিরচর ও নর্থচ্যানেল ইউনিয়নের সম্মিলনস্থল গোলডাঙ্গী সেতু এলাকার দুইশ মিটার এলাকাজুড়ে ব্যাপক ভাঙ্গণ দেখা দিয়েছে। প্রায় দেড় কিলোমিটার এলাকায় আগে থেকে ভাঙ্গণ দেখা দিলেও ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাবে নদীতে পানি বাড়ায় তীব্র আকার ধারণ করে। ভাঙ্গণ কবলিত এলাকা পরিদর্শন করে জেলা প্রশাসন ও পানিউন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তারা।

সম্প্রতি প্রায় পাঁচ কোটি টাকা ব্যায়ে নির্মিত গোলডাঙ্গী সেতুসহ কয়েকশ বাড়ীঘর, মসজিদ ও ফসলীজমিসহ নানা স্থাপনা ভাঙ্গণের ঝুঁকিতে পড়েছে। শেষ সম্ভল ভিটেমাটি রক্ষায় ভাঙ্গনরোধে দীর্ঘস্থায়ী বাধ চইলেন পদ্মাপাড়ের মানুষ।

এদিকে এলাকা পরিদর্শন শেষে ভাঙ্গনরোধে দ্রুত ব্যাবস্থা নেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন জেলা প্রশাসক ও পানিউন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী।

আর ভাঙ্গরোধে এখনই ব্যবস্থা গ্রহণ করবে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ-এমন প্রত্যাশা স্থানীয়দের।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author