২০২১-২২ অর্থবছরের জন্য ৬ লাখ ৩ হাজার ৬৮১ কোটি টাকার বাজেট ঘোষণা করেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। এতে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৩ লাখ ৮৯ হাজার কোটি টাকা।

আজ বৃহস্পতিবার (৩ জুন) বিকালে করোনা পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে দেশের ৫০তম বাজেট অধিবেশনে যোগ দেন সংসদ সদস্যরা। স্পিকারের অনুমতি নিয়ে, অডিও ভিজুয়াল ও পাওয়ার পয়েন্টের মাধ্যমে বাজেট উপস্থাপন করেন অর্থমন্ত্রী। মন্ত্রিসভার বিশেষ বৈঠকে, প্রস্তাবিত ২০২১-২২ অর্থবছরের বাজেট অনুমোদন দেয়া হয়। জাতীয় সংসদ ভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। পরে প্রস্তাবিত ও সংশোধিত বাজেট অনুসাক্ষর করেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ।

এবার বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে বরাদ্দ ২ লাখ ২৫ হাজার ৩২৪ কোটি টাকা। এছাড়া করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় ১০ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দের পাশাপাশি ৫ হাজার কোটি টাকার জরুরি তহবিল রাখা হয়েছে। পাশাপাশি অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে ঢালাওভাবে কর ছাড় দেয়া হয়েছে। পরিস্থিতি বিবেচনায় জিডিপি প্রবৃদ্ধি ধরা হয়েছে ৭ দশমিক ২শতাংশ আর মূল্যস্ফীতি ৫ দশমিক ৩ শতাংশ।

৬ লাখ ৩ হাজার ৬৮১ কোটি টাকার প্রস্তাবিত বাজেটে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্য ৩ লাখ ৮৯ হাজার কোটি। এর মধ্যে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের মাধ্যমে আসবে ৩ লাখ ৩০ হাজার কোটি। এনবিআর বহির্ভূত কর ১৬ হাজার কোটি আর কর বহির্ভূত প্রাপ্তি ৪৩ হাজার কোটি। বৈদেশিক অনুদান থেকে আসবে ৩ হাজার ৪৯০ কোটি টাকা। এতে চলতি বছরের মতোই প্রবৃদ্ধি লক্ষ্যমাত্রা ৭ দশমিক দুই শতাংশ। আর মূল্যস্ফীতি ৫ দশমিক ৩ শতাংশ।

ব্যক্তিশ্রেণির করমুক্ত আয়সীমা ৩ লাখ টাকা
অপরির্বতিত। করপোরেট কর ২৫
শতাংশ থেকে কমিয়ে ২২ দশমিক ৫ শতাংশ করা হয়েছে। বার্ষিক
উন্নয়ন কর্মসূচি বা এডিপিতে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে ২ লাখ ২৫
হাজার ৩২৪ কোটি টাকা। করোনা
পরিস্থিতি মোকাবিলায় বরাদ্দ রাখা হয়েছে ১০ হাজার কোটি টাকা। হঠাৎ প্রয়োজনের ৫
হাজার কোটি টাকার তহবিলও প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী।

পরিচালনসহ
অন্যান্য ব্যয় প্রস্তাব করা হয়েছে ৩ লাখ ৬১ হাজার ৫০০ কোটি টাকা। বাজেট ঘাটতি ২
লাখ ১১ হাজার ১৯১ কোটি টাকা। ঘাটতি মেটাতে অভ্যন্তরীণ সম্পদ থেকে এক লাখ ১৩ হাজার ৪৫৩
কোটি এবং অনুদানসহ বৈদেশিক উৎস থেকে ১ লাখ ১ হাজার ২২৮ কোটি টাকা।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author