ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাবে উপকূলীয় ১৪ জেলার অন্তত ২৭ উপজেলায় ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এরমধ্যে পাঁচ ফুট উচ্চতার জলোচ্ছ্বাসে কক্সবাজারের ৪৫টি গ্রাম প্লাবিত হয়। বিধ্বস্ত হয়েছে পাঁচ শতাধিক বাড়িঘর। নষ্ট হয়ে গেছে ২ হাজার মেট্রিকটনের বেশি লবণ। ঢেউয়ের তোড়ে ভেঙে গেছে সেন্টমার্টিনের একমাত্র জেটি।

এছাড়া পিরোজপুর, সাতক্ষিরা, খুলনার কয়রা, পটুয়াখালী, ভোলা, বরগুনা, লক্ষ্মীপুর, নোয়াখালীর হাতিয়া, ফেনীর সোনাগাজীর বিভিন্ন উপজেলার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে লোকালয়ে ঢুকছে পানি।

এদিকে, ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে অসহনীয় তাপপ্রবাহ কেটে গেলেও ভারী বৃষ্টিপাতের আভাস দেয়া হয়েছে। অন্যদিকে ঘূর্ণিঝড়ে সুন্দরবনের ক্ষয়ক্ষতি নির্ধারণে আলাদা ৫টি কমিটি গঠন করেছে বন বিভাগ।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author