গাজায় ইসরাইলি বর্বরতা অব্যাহত রয়েছে। মার্কিন প্রেসিডেন্টের অস্ত্রবিরতির আহ্বান উপেক্ষা করে মঙ্গলবারও অবরূদ্ধ গাজা উপত্যকায় চালানো হয় ক্ষেপণাস্ত্র হামলা। এতে বুধবার সকাল পর্যন্ত নিহতের সংখ্যা বেড়ে ২২০ জনে দাঁড়িয়েছে। আহত দেড় হাজারের বেশি। বসতবাড়ির পাশাপাশি হামাসের সামরিক ঘাঁটিগুলো ইসরাইলি সেনাবাহিনীর মূল টার্গেট।

ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু বলেছেন,গাজার নেতৃত্বে থাকা হামাস এবার অপ্রত্যাশিত মাত্রায় বিস্ফোরণ দেখেছে। ইসরাইলিদের জন্য শান্তিপূর্ণ অবস্থা নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত এই অভিযান চলবে। গাজায় গেলো নয় দিনের অব্যাহত বিমান হামলায় ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামী সংগঠন হামাস কয়েক বছর পিছিয়ে গেছে বলেও দাবি করেন নেতানিয়াহু।

গাজায়
ইসরাইল-ফিলিস্তিন সংঘাত বন্ধে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে প্রস্তাব পেশ করেছে
ফ্রান্স। এই ইস্যুতে ভোটাভুটির ডাকও দিয়েছে দেশটি।   মঙ্গলবার ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল
ম্যাক্রোর কার্যালয় থেকে এ কথা জানানো হয়।

এদিকে, গাজায় ইসরাইলি হামলায় ৫৮ হাজারেরও বেশি ফিলিস্তিনি গৃহহীন হয়েছে বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ। প্রায় সাড়ে ৪শ ভবন সম্পূর্ণ ধ্বংস অথবা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

অন্যদিকে, মঙ্গলবার গাজা উপত্যকায় কেরেম শালোম সীমান্তে ফিলিস্তিনিদের জন্য ত্রাণবাহী বহর আটকে দিয়েছে ইসরাইল। শুরুতে ত্রাণবাহী কয়েকটি ট্রাক প্রবেশের সুযোগ পেলেও হামাসের মর্টার হামলার পর, সীমান্ত বন্ধ করে দেয় ইসরাইল।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author