পাল্টাপাল্টি রকেট হামলায় উত্তপ্ত ইসরাইল ও ফিলিস্তিন। এতে দু দেশের মিলে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩৫ জনে। গাজায় ইসরাইলি বাহিনীর বিমান হামলায় হানাদি টাওয়ার সম্পূর্ণ বিধ্বস্ত হয়েছে। জবাবে তেল আবিবে পাল্টা হামলা চালায় হামাস বাহিনী। জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছে ইসরাইলে। উত্তেজনা কমাতে দুপ’ক্ষকেই শান্ত থাকার আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘ।

অবরুদ্ধ
গাজা উপত্যকায় বিমান হামলা অব্যাহত রেখেছে ইসরাইলি বাহিনী। সবশেষ চালানো হামলায়
বিধ্বস্ত হয়েছে একটি বহুতল আবাসিক ভবন। এটি হামাসের কার্যালয় হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে
আসছিলো বলে ধারণা করা হয়। তবে সেখানে এখন পর্যন্ত কোনো প্রাণহানির খবর পাওয়া
যায়নি। গাজা উপত্যকায় অব্যাহত বিমান হামলায় দু দেশের নিহতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে
৩৫ জনে।

আবাসিক
এলাকায় হামলার জবাবে তেল আবিব শহর লক্ষ্য করে অন্তত ১৩০টি রকেট হামলা চালায় হামাস।
এতে মারা যায় ৫ জন। বিধ্বস্ত হয়েছে বেশ কিছু স্থাপনা। রকেট হামলার পর ইসরাইলের প্রধান
আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর বেন গুরিওন বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। গেল সোমবার দেশটির লড
শহরে এক ফিলিস্তিনিকে গুলি করে
হত্যার পর সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ে। এর জেরে শহরটিতে জরুরি অবস্থা জারি করা হয়।

দু’দেশই যুদ্ধের দিকে
এগিয়ে যাচ্ছে। এমন শংঙ্কা জানিয়ে, অবিলম্বে সহিংসতা বন্ধের আহ্বান
জানান জাতিসংঘ মধ্যপ্রাচ্যে নিযুক্ত শান্তিবিষয়ক দূত টোর ওয়েনেসল্যান্ড। টুইট
বার্তায় তিনি বলেন, বিভিন্ন স্থাপনার ক্ষয়ক্ষতি ও সাধারণ মানুষের প্রাণহানির জন্য
সব পক্ষকেই এর দায় নিতে হবে।  

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author