আজ মহান মে দিবস

মহান মে দিবস আজ। বঞ্চনা, নির্যাতন ও বৈষম্যের বিরুদ্ধে শ্রমিকদের সংগ্রাম আর অধিকার আদায়ের দিন। একশ ২৮ বছর আগে যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগো শহরের হে মার্কেটের সামনে ন্যায্যমজুরি ও আট ঘন্টার বেশি কাজ না করার দাবিতে আন্দোলনরত শ্রমিকদের উপর পুলিশের হামলায় মারা যায় ১১জন।

করোনা পরিস্থিতিতে সীমিত পরিসরে দেশে মহান মে দিবস পালন করা হচ্ছে। এবার মে দিবসের প্রতিপাদ্য ‘শ্রমিক-মালিক নির্বিশেষ, মুজিববর্ষে গড়ব দেশ’। চলছে মানববন্ধন, শোভাযাত্রা, আলোচনা সভাসহ নানা আয়োজন। করোনায় কর্মহীন শ্রমিকদের খাদ্য ও নগদ সহায়তা, নুন্যতম মজুরি ২০ হাজার টাকা, বাশখালীতে শ্রমিক হত্যার বিচারসহ বিভিন্ন দাবি জানান শ্রমিক নেতারা। মে দিবসে সব মেহনতি মানুষকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে বিশ্বব্যাপী পালিত হচ্ছে দিনটি।

১৮৮৬ সালে যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগোয় অবস্থিত হে মার্কেটে ৮ ঘন্টা কাজের দাবিতে শুরু হওয়া শ্রমিক আন্দোলনে পুলিশের গুলিতে হতাহতের ঘটনা নাড়া দিয়েছিলো বিশ্বকে। মে মাসের ১ তারিখ পূর্বঘোষণা অনুযায়ী বিক্ষোভে নামে ফেডারেশন অব অর্গানাইজড ট্রেডস এন্ড লেবার ইউনিয়ন। সমাবেশ ভাঙতে সেখানে গুলি চালায় পুলিশ। এতে ঘটনাস্থলেই মারা যায় ৪ শ্রমিক, আহত হয় অসংখ্য।

এ ঘটনায় পুলিশের ওপর বোমা হামলার মিথ্যা অভিযোগে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়
অগাস্ট স্পাইস, আলবার্ট পারসন্স ও এডলফ ফিশারসহ ৪ শ্রমিক নেতাকে। এসব ঘটনায়
পুঁজিবাদী সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে ফুঁসে ওঠে বিশ্বের মেহনতি মানুষ।তাদের এ আন্দোলন
ক্রমেই ছড়িয়ে পড়ে বিশ্বে; রূপ নেয় সারা শ্রমিকদের অসহযোগ আন্দোলনে।

তাদের আত্মত্যাগের ঘটনাকে স্মরণ করেই মে মাসের এক তারিখকে ঘোষণা করা হয় আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবস। বিশ্বের প্রায় ৮০টিরও বেশি দেশে রাষ্ট্রীয়ভাবে পালিত হয় দিবসটি। তবে এ ঘটনার ১২৮বছরেও পূরণ হয়নি শ্রমিকদের কাঙ্খিত অধিকার। এখনো বিশ্বব্যাপী মালিক শ্রেণীর শোষণ, বঞ্চনার স্বীকার মেহনতি মানুষ।

এবার করোনার ঊর্ধ্বগতিতে
দিবসটি উপলক্ষ্যে দেশে দেশে সীমিত পরিসরে থাকছে নানা আয়োজন। অধিকার আদায়ের দাবিতে
ইতোমধ্যে জার্মানিসহ কয়েকটি দেশে সীমিত পরিসরে পালিত হয়েছে কর্মসূচি।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author