৫ থেকে ৮ এপ্রিল ডি-এইট’ শীর্ষ সম্মেলন

আগামী ৫ থেকে ৮ এপ্রিল ঢাকায় বসছে আট মুসলিম দেশের জোট ‘ডি-এইট’ শীর্ষ সম্মেলন। সামিটের ঢাকা ঘোষণা পর্বে রোহিঙ্গা ইস্যুতে নিন্দা প্রস্তাব উত্থাপন করবে স্বাগতিক বাংলাদেশ। ভার্চুয়াল প্লাটফর্মে আয়োজিত সম্মেলনে, দেশের উন্নয়ন তুলে ধরার পাশাপাশি যুবকদের জন্য থাকবে বিশেষপর্ব।

বুধবার (৩১ মার্চ) দুপুরে অনলাইন ব্রিফিংয়ে এসব তথ্য জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন।

দশম ডি-এইট শীর্ষ সম্মেলনে সভাপতিত্ব করবেন বাংলাদেশের প্রধনমন্ত্রী শেখ হাসিনা। অন্যান্য দেশ হলো মিশর, ইন্দোনেশিয়া, ইরান, মালয়েশিয়া, নাইজেরিয়া, পাকিস্তান ও তুরস্ক। এসব দেশের সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধানরা যুক্ত হবেন ভার্চুয়াল প্লাটফর্মে। স্বাগতিক দেশ হিসেবে আগামী দু’বছর ডি-এইটের চেয়ারের দায়িত্ব পালন করবে বাংলাদেশ। সম্মেলনে দায়িত্ব হস্তান্তর করবে বর্তমান চেয়ার তুরস্ক।

আয়োজনের
বিভিন্ন দিক তুলে ধরতে অনলাইনে সংবাদ সম্মেলন করেন পররাষ্ট্র মন্ত্রী। বলেন, বাণিজ্য,
কৃষি, খাদ্য নিরাপত্তা, শিল্প, পরিবহন ও জ্বালানিখাতে পারস্পরিক সহযোগিতার বিষয়টি সম্মেলনে
গুরুত্ব পাবে। মন্ত্রী জানান,
এ সম্মেলনে রোহিঙ্গা ইস্যু জোরালোভাবে তুলে ধরবে বাংলাদেশ।

এদিকে, জার্মানির হাইডেলবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ে চালু করা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান প্রফেসরিয়াল ফেলোশিপ নিয়ে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে অংশ নেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। এ ফেলোশিপের ফলে ইউরোপের দেশগুলোর সঙ্গে দক্ষিণ এশিয়ার প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা বিনিময়ের সুযোগ বাড়বে বলে মনে করেন তিনি। এ বছর বঙ্গবন্ধু ফেলোশিপে মনোনীত হয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ডক্টর হারুন অর রশিদ।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author