দ্বিতীয় দিনের মতো রাজধানী জুড়ে চলছে বই উৎসব

দ্বিতীয় দিনের মতো রাজধানী জুড়ে চলছে বই উৎসব। করোনায় শংকা কাটিয়ে বছরের শুরুতে বই হাতে পেয়ে বেজায় খুশি শিক্ষার্থী-অভিভাবকরা। তবে এখনও সব শ্রেণির বই হাতে না পাওয়ায় কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বিপকে পড়েছেন। হাতে পেলে সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে বই বিতরণ করা হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষকরা।

অদৃশ্য ভাইরাস করোনা থেকে সুরক্ষায় খুদে শিক্ষার্থীদের কোমল মুখে মাস্ক। স্কুল প্রাঙ্গণে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা, সেখানে তারা সাবান দিয়ে হাত ধুয়েছে। সারিতে দাঁড়িয়েছে সামাজিক দূরত্ব মেনে। নতুন স্বাভাবিক (নিউ নরমাল) এই জীবনে দীর্ঘদিন পর প্রিয় প্রাঙ্গণে আসা। সহপাঠীদের দেখার আনন্দটা হলেও কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে, হাতে হাত মিলিয়ে মেশা হয়নি। ফলে গত এক দশকের বই উৎসবের চেনারূপটির দেখা মেলেনি আজ। আর এক দিনের বই উৎসবের বদলে এবার বই বিতরণ চলবে ১২ দিন ধরে।

প্রতিবারের মতো প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আনুষ্ঠানিকভাবে বই বিতরণ কর্মসূচির উদ্বোধন করেন। গতকাল তার সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি এই উৎসব উদ্বোধন করেন তিনি। এরপর আজ থেকে ধাপে ধাপে শিক্ষার্থীদের হাতে পৌঁছাতে শুরু করেছে নতুন বই। এ বছর বিনামূল্যে প্রায় চার কোটি ১৭ লাখ শিক্ষার্থীদের মোট সাড়ে ৩৪ কোটি বই দেয়া হচ্ছে। বই উৎসব উদ্বোধন শেষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জানান, করোনাভাইরাস পরিস্থিতি জানুয়ারিতে স্বাভাবিক না হলে স্কুল বন্ধ রাখা হবে। তবে ডিজিটাল মাধ্যমে ক্লাস চলবে।

করোনার কারণে এবার বই উৎসব হচ্ছে
স্বল্প পরিসরে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে শ্রেণি ভাগ করে প্রতিদিন শিক্ষার্থীদের হাতে
তুলে দেয়া হচ্ছে নতুন বই।

অনিশ্চয়তা কাটিয়ে শিক্ষাবর্ষের
শুরুতে বই হাতে পেয়ে বেজায় খুশি শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা। এজন্য সরকার প্রধানসহ
সংশ্লিষ্টদের ধন্যবাদ জানান তারা।

উৎসব চললেও সব শ্রেণির বই এখনো
হাতে পায়নি সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।

প্রাণঘাতি ভাইরাস করোনা থেকে
দ্রুত মুক্তিলাভ করবে বিশ্ববাসী আর প্রাণের কোলাহলে ফের প্রাণবন্ত হবে স্কুল
ক্যাম্পাস, এমনটাই প্রত্যাশা শিক্ষক-অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author