ধর্ষণের সর্বোচ্চ সাজা মৃত্যুদণ্ডে   সাধারণ মানুষের সাধুবাদ

ধর্ষণ
প্রতিরোধে সর্বোচ্চ সাজা মৃত্যুদণ্ডের বিধান করায় সাধুবাদ জানিয়েছে সাধারণ মানুষ।
সেইসঙ্গে দেশের প্রতিটি নাগরিককে এ বিষয়ে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলার আহবান জানান
তারা। আর শুধু আইন প্রণয়ন নয়, এর যথাযথ প্রয়োগের ওপর জোর দেন বিশেষজ্ঞরা।

সম্প্রতি
দেশে নারী নির্যাতন ও ধর্ষণ বেড়ে যাওয়ার প্রেক্ষাপটে শুরু হয় আন্দোলন। দাবি উঠে, ধর্ষকের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের। সোমবার মন্ত্রিসভার
বৈঠকে, আইনে মৃত্যুদণ্ডের বিধান যুক্ত করা হয়। সবশেষ এ সংক্রান্ত অধ্যাদেশ জারি
করেছেন রাষ্ট্রপতি।

সরকারের
এ সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানিয়েছে সাধারণ মানুষ। এতে ধর্ষণ ও নির্যাতন কমে আসবে বলে
মনে করেন তারা।

সমাজে
নারীদের যথাযথ মুল্যায়ন ও মর্যাদা প্রতিষ্ঠায় রাষ্ট্রের পাশাপাশি সবাইকে আরো সচেতন
হওয়ার কথাও বলেন তারা।

আইনের
কঠোর প্রয়োগের মাধ্যমে, ধর্ষণের মতো সামাজিক ব্যাধি থেকে মুক্তি সম্ভব বলে মনে
করেন বিশিষ্টজনরা।

ধর্ষকের দ্রুত সাজা নিশ্চিতের পাশাপাশি পারিবারিক মূল্যবোধ গড়ে তোলার কথাও বলেন তারা।

ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের বিধান রেখে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন সংশোধন করে অধ্যাদেশ আকারে জারি করা খসড়ার নীতিগত এবং চূড়ান্ত অনুমোদন দেওয়ায় প্রধানমন্ত্রীসহ মন্ত্রিপরিষদের সব সদস্যকে ধন্যবাদ ও অভিন্দন জানান সাধারন মানুষ।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author