ইলিশ ধরা ও বিক্রি নিষেধ

মা ইলিশ রক্ষায় ইলিশের বিজ্ঞানভিত্তিক প্রজনন সময় বিবেচনা নিয়ে আশ্বিন মাসের পূর্ণিমাকে ভিত্তি ধরে মৎস্য সংরক্ষন আইন সংশোধন করে ইলিশ আহরণ নিষিদ্ধের সসয়সীমা ২২ দিন করা হয়েছে। এই সময়ের মধ্যে ইলিশ আহরণ, পরিবহন, বিপণন ও মজুদ বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

আজ সোমবার ( ১২ অক্টোবর) দুপুরে সচিবালয়ে মৎস্য ও প্রাণীসম্পদ মন্ত্রনালয়ের সম্মেলন কক্ষে মা- ইলিশ সংরক্ষণ অভিযান উপলক্ষ্যে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে মৎস্য ও প্রাণীসস্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম এসব কথা বলেন।

আজ সোমবার সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম।

শ ম রেজাউল করিম বলেন, ‘বিশ্বের মোট উৎপাদিত
ইলিশের ৮০ শতাংশের বেশি বাংলাদেশের নদ-নদী মোহনা ও সাগর থেকে আহরিত হয়।
অন্যান্য বছরের চেয়ে অনেক সুন্দর ও বড় আকারের ইলিশ পাওয়া যাচ্ছে। এটা সম্ভব
হয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকার ইলিশ সম্পদ রক্ষা ও
উন্নয়নে সময়োপযোগী ওবাস্তবমুখী কার্যক্রম বাস্তবায়নে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ বলে।’

মন্ত্রী বলেন, ‘ইলিশ এক সময় দুষ্প্রাপ্য হয়ে যাচ্ছিল। এখন ইলিশ মানুষের হাতের নাগালে চলে এসেছে। বাংলাদেশে অতীতের সব রেকর্ড ভঙ্গ করে এ বছর ইলিশ উৎপাদিত হয়েছে। এ ধারা অব্যাহত রাখতে আমরা ১৪ অক্টোবর থেকে ৪ নভেম্বর পর্যন্ত ২২ দিন মা ইলিশ ধরা সস্পূর্ণরূপে নিষিদ্ধ করেছি।’

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author