আশুলিয়ায় মাদ্রাসায় শিক্ষার্থী নির্যাতন

সাভার আশুলিয়ার একটি মাদ্রাসায় দুই শিক্ষার্থীকে হাত পা বেধে মারধোরের ঘটনায় অভিযুক্ত শিক্ষক ইব্রাহিম মিয়াসহ চারজনকে আটক করেছে পুলিশ। গতকাল রাতে নতুন নগর মদনটেক এলাকার জাবালে নুর মাদ্রাসায় অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়।

পুলিশ জানায়, তুচ্ছ কারণে মাদ্রাসার শিক্ষার্থী রাকিব হোসেন ও মাহফুজুর রহমানকে পিটিয়ে আহত করে শিক্ষক ইব্রাহিম। মারধোরের ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়।

জানা যায়, গত ১১ সেপ্টেম্বর আশুলিয়ার শ্রীপুরের নতুননগর মদনেরটেক এলাকায় জাবালে নূর মাদ্রাসায় অন্যান্য শিক্ষার্থীদের সামনেই শিক্ষক ইব্রাহিম মিয়া (৩৩) শিক্ষার্থী রাকিব হোসেনকে (৯) হাত-পা বেঁধে নির্যাতন করছেন। এ সময় পাশেই দেখা যায়, হাত-পা বাঁধা আতঙ্কিত মাহফুজুর রহমান নামের আরেক শিক্ষার্থীকে।

পরে দুই শিক্ষার্থী অসুস্থ হয়ে পড়লে খবর দেওয়া হয় তাদের পরিবারকে। এদের মধ্যে শিশু রাকিব হোসেনকে গুরুতর অবস্থায় উদ্ধার করে তার পরিবার গ্রামের বাড়ি নিয়ে টাঙ্গাইলের একটি হাসপাতালে ভর্তি করে। নির্মম শারীরিক নির্যাতনে শিশুটি এখন মানসিকভাবে আতঙ্কিত ও ভারসাম্যহীন বলে জানিয়েছে তার পরিবার।

এদিকে, গতকাল সকালে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে শিশু শিক্ষার্থীকে মারধরের ভিডিও ভাইরাল হলে ঘটনাস্থলে যায় আশুলিয়া থানা পুলিশ। এলাকাবাসী ওই শিক্ষককে গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনার জোর দাবি জানায়। পরে রাতে অভিযান চালিয়ে শিক্ষক হাফেজ ইব্রাহিম মিয়া ও হাফেজ ওবায়দুল্লাহসহ চারজনকে আটক করে পুলিশ।

এলাকাবাসী জানায়, দুই বছর আগে জাবালে নূর মাদ্রাসা চালু করেন আবদুল জব্বার নামের স্থানীয় এক বাসিন্দা। ওই মাদ্রাসায় আগে দুইশ শিক্ষার্থী থাকলেও নির্যাতনের কারণে একে একে মাদ্রাসা ছেড়ে যান শিক্ষার্থীরা। মাত্র দুজন শিক্ষকের তত্ত্বাবধানে বর্তমানে ১৪ জন শিক্ষার্থী ছিল। সর্বশেষ নির্যাতনের শিকার হওয়ার পর দুই শিশুকেও ওই মাদ্রাসা থেকে ছাড়িয়ে নিয়ে গেছেন অভিভাবকরা।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author