লাইসেন্স নবায়নের আবেদন করেছে ১২ হাজার হাসপাতাল

বেসরকারি ১২ হাজার ৫৪৩টি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার নিবন্ধন নবায়নের জন্য সরকারের কাছে আবেদন করেছে।

আজ বুধবার (০২ সেপ্টেম্বর) বিচারপতি তারিক উল হাকিম ও বিচারপতি এসএম কুদ্দুস জামানের হাইকোর্ট বেঞ্চে এমন তথ্য উপস্থাপন করেছে রাষ্ট্রপক্ষ।

জনস্বার্থে করা এক রিট আবেদনের শুনানিতে, গত ৩১ আগস্ট কোভিড ও নন-কোভিড হাসপাতালের সংখ্যা এবং বৈধ-অবৈধ বেসরকারি হাসপাতালের তথ্য চেয়েছিলেন হাইকোর্ট। লাইসেন্স ছাড়া কতটি হাসপাতাল বা ক্লিনিক চলছে, সে সম্পর্কে কোন তথ্য দিতে পারেনি রাষ্ট্রপক্ষ।

বুধবার (০২ সেপ্টেম্বর) রাষ্ট্রপক্ষে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অমিত দাসগুপ্ত এসব তথ্য আদালতে তুলে ধরেন।

বর্তমানে ১২ হাজার ৫৪৩টি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার তাদের লাইসেন্স নবায়নের জন্য আবেদন করেছে এবং এগুলোর নবায়ন প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। কোনো কোনোটির নবায়ন এরই মধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। বেসরাকারি লাইসেন্সধারী হাসপাতালগুলোর তালিকা সরকারের কাছে আছে। যেগুলোর কোনো লাইসেন্স নেই, সেগুলোর তালিকা নেই। সেগুলোর বিরুদ্ধে সরকার কর্তৃক অভিযান পরিচালিত হচ্ছে।

এ রিট আবেদনে লাইসেন্সবিহীন হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের কার্যক্রম পরিচলনার বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নিতে বিবাদীদের ব্যর্থতা কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না, সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে যথাযথ চিকিৎসা নিশ্চিতে চিকিৎসার অবহেলায় প্রত্যেক ভিকটিমকে ক্ষতিপূরণ দিতে এবং গাইডলাইন তৈরির কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না, এ মর্মে রুল জারির আর্জি জানানো হয়েছে।

গেল ১৯ জুলাই বেসরকারি রিজেন্ট হাসপাতালে করোনা টেস্টের ভুয়া সনদে ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা প্রকাশ চেয়ে সরকারকে আইনি নোটিশ পাঠিয়েছিলেন এ আইনজীবী। স্বাস্থ্য সচিব, স্বরাষ্ট্র সচিব ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক, রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক বরাবর এ নোটিশ পাঠানো হয়েছিল।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author