৫ আগষ্ট থেকে খুলছে নিন্ম আদালত

আগামী ৫ আগস্ট থেকে দেশের সব অধস্তন আদালতে শারীরিক উপস্থিতিতে স্বাভাবিকভাবে বিচার কার্যক্রম পরিচালনা করার সিদ্ধান্ত দিয়েছেন প্রধান বিচারপতি। করোনা পরিস্থিতিতে দীর্ঘদিন ভার্চুয়াল পদ্ধতিতে বিচার কার্যক্রম চলছে। তবে আদালত প্রাঙ্গণ এবং এজলাস কক্ষে সুরক্ষামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে এমন ঘোষণা দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসন। ।

বৃহস্পতিবার (৩০ জুলাই) সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেল মো. আলী আকবর স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

অবশেষে প্রায় চার মাস পর সারাদেশের আদালতে স্বাভাবিক কার্যক্রম শুরু হচ্ছে। করোনায় স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করে দেশের অধস্তন দেওয়ানি ও ফৌজদারি আদালত এবং ট্রাইব্যুনালে শারীরিক উপস্থিতিতে বিচার শুরু করার নির্দেশ দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসন। আগামী ৫ আগস্ট থেকে এ বিচার কাজ শুরু হবে।

প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নির্দেশে বৃহস্পতিবার ৩০ জুলাই রাত ১১টায় এ বিষয়ে পৃথক সার্কুলার জারি করা হয়। সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেল মো. আলী আকবর স্বাক্ষরিত সার্কুলারে বলা হয়, প্রধান বিচারপতি বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের জ্যেষ্ঠ বিচারপতিদের সঙ্গে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, অধস্তন সব দেওয়ানি ও ফৌজদারি আদালত এবং ট্রাইব্যুনালে আগামী ৫ আগস্ট শারীরিক উপস্থিতিতে স্বাভাবিক কার্যক্রম পরিচালিত হবে।

অধস্তন দেওয়ানি ও ফৌজদারি আদালত এবং ট্রাইব্যুনালে স্বাভাবিক কার্যক্রম পরিচালনার ক্ষেত্রে সুপ্রিম কোর্টের অপর সার্কুলারে আদালত প্রাঙ্গণ এবং এজলাসকে সুরক্ষামূলক ব্যবস্থা গ্রহণে ১৩ দফা নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। 

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, আদালত প্রাঙ্গণ এবং এজলাস কক্ষে প্রত্যেকে আবশ্যিকভাবে শারীরিক ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখাসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার নির্দেশ প্রতিপালন করবেন। এজলাস, সাক্ষীর ডক এবং কাঠগড়ার প্রয়োজনীয় অংশে গ্লাস দিয়ে পৃথক প্রতিরোধক প্রকোষ্ঠ প্রস্তুতের ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। উদ্ভুত পরিস্থিতিতে সাময়িকভাবে বিচারক ও আইনজীবীরা ক্ষেত্র মতো সাদা শার্ট বা সাদা শাড়ি, সালোয়ার-কামিজ ও সাদা নেক ব্যান্ড, কালো টাই পরিধান করতে পারবেন।

জেলা জজ/মহানগর দায়রা জজ, চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট/চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ভবনের প্রবেশপথে এবং প্রকাশ্য স্থানে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা হিসেবে প্রয়োজনীয় সংখ্যক বেসিন স্থাপনসহ সাবান-পানির ব্যবস্থা রবেন। আদালতে উপস্থিত প্রত্যেকে যথাসম্ভব নিজ নিজ নাক, মুখ এবং চোখ স্পর্শ করা থেকে বিরত থাকবেন। 

এর আগে ২৬ মার্চ থেকে অধস্তন ও উচ্চ আদালতে নিয়মিত বিচার কাজ বন্ধ ঘোষণা করে সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসন।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author