তামাক পাতা দিয়ে করোনার ওষুধ

এবার তামাক গাছ থেকে করোনা ভাইরাসের ওষুধ আবিষ্কারের দাবি করেছে ব্রিটিশ আমেরিকান সিগারেট উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার গ্রিন সিগন্যাল পেলেই ব্যাপক হারে উৎপাদনে নামতে চায় তারা। যদিও এ বিষয়ে এখনও কিছু জানায়নি ডব্লিউ এইচ ও। মারণ ভাইরাস করোনার প্রতিষেধক তৈরিতে কোমর বেঁধে নেমেছে বিশ্ব। অনেকেই আবিষ্কারের পর সাফল্য পাওয়ারও দাবি করেছেন। আবার কেউ বলছেন করোনার ভ্যাকসিন তৈরি করা সম্ভব হবে না কোনদিনও। একশ্রেণির বিজ্ঞানী আবার বলছেন, একসময় প্রাকৃতিকভাবেই উধাও হবে করোনা।

সম্প্রতি একটি ব্রিটিশ-মার্কিন একটি সিগারেট সংস্থার বিজ্ঞানীরা দাবি করেছে,তামাক পাতার প্রোটিন থেকে কভিড-নাইনটিনের সম্ভাব্য প্রতিষেধক আবিষ্কার করার। তাদের তথ্যমতে, ভাইরাসের  অ্যান্টিজেন বা ক্ষুদ্র একটি অংশ সংগ্রহ করে তামাক গাছে প্রবেশ করানো হয়। পরে ওই গাছের পাতার নির্যাস পরিশোধনের মাধ্যমে তৈরি করা হয় প্রতিষেধকটি। বানরের উপর প্রাথমিক পরীক্ষায় ভাল ফলও মিলেছে বলে দাবি করেছেন তারা। সংস্থাটি জানায়, মার্কিন ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের অনুমতি মিললে জুন মাসেই মানবদেহে এর প্রথম পর্যায়ের পরীক্ষা শুরু হতে পারে। আর সরকারের সাহায্য পেলে, সপ্তাহে ১০ থেকে ৩০ লক্ষ ডোজ তৈরি করা সম্ভব হবে।

ভ্যাকসিন তৈরির দৌড়ে শামিল হয়েছে চীনের পিকিং বিশ্ববিদ্যালয়। দ্রুত ওষুধ তৈরির পাশাপাশি আক্রান্ত ব্যক্তির রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোই তাদের প্রধান লক্ষ্য। গবেষকরা বলছেন,ইতোমধ্যেই ওষুধটির সফল প্রয়োগ হয়েছে প্রাণীদেহে। সুস্থ হয়ে উঠেছেন এমন ৬০ জনের অ্যান্টিবডি সংগ্রহ করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের জীনতত্ত্ব বিভাগের গবেষকরা। সেই অ্যান্টিবডিই কাজে লাগানো হচ্ছে পরীক্ষায়।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author