৩০ টাকায় করোনা থেকে মুক্তি

মাত্র ত্রিশ টাকায় চারদিনে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীকে সুস্থ করার নজির গড়েছেন, বাংলাদেশ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বক্ষব্যাধি বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. তারেক আলম। ডক্সিসাইক্লিন ও আইভারমেকটিন ওষুধ দুটির যৌথ প্রয়োগে ৮০ শতাংশকে রোগীকে সারিয়ে তুলেছেন তিনি তার চিকিৎসক দল। যদিও তার এ সাফল্যের স্বীকৃতি এখনো মেলেনি। প্রাণী চিকিৎসায় একটি অনন্য ওষুধের নাম আইভারমেকটিন। এটি গবাদি পশু এবং কুকুর, বেড়াল, খরগোশরে মত প্রাণীর তিন ধরনের কৃমি এবং উঁকুনসহ তিনরকম বহিরপরজীবী নাশে দারুণ কার্যকর। ক্রিম বা লোশন হিসেবে ব্যবহার বেশি হলেও ট্যাবলেট আকারে এর প্রয়োগ ১৯৮০ সাল থেকে।

ডক্সিসাইক্লিন, এন্টিবায়োটিক গোত্রের ওষুধটি বিস্তৃত বর্ণালীর জীবানু প্রতিরোধী হিসেবে এটি ব্যবহার করা হয়। মানবকোষে ভাইরাসের প্রোটিন উৎপাদন প্রক্রিয়া ব্যাহত করে। বাংলাদেশ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসক, নার্স, শিক্ষার্থীসহ মোট ৬০ জনের ওপর প্রয়োগ করা হয় আইভারমেকটিন ও ডক্সিসাইক্লিন। চিকিৎসায় তাদের প্রত্যেকের করোনা নেগেটিভ আসে।

পুরো প্রক্রিয়া শেষ করতে ৮০ থেকে ৯০ টাকার ওষুধ লেগেছে। প্রথম তিনদিনে ৩০ থেকে ৩৫ টাকা ওষুধ সেবনের পর নমুনা পরীক্ষায় প্রথম নেগেটিভ এসেছে। তবে এটি নিয়ে বড় আকারে পরীক্ষায় যেতে হলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরকে এগিয়ে আসতে হবে। আরও বেশি মানুষের ওপর পরীক্ষা চালাতে হলে বাংলাদেশ চিকিৎসা গবেষণা পরিষদ, বিএমআরসি থেকে নীতিগত অনুমোদন নিতে হবে। ওষুধ প্রশাসন থেকেও অনুমতির ব্যাপার আছে। এ ব্যাপারে সরকারের সহায়তা কামনা করেছেন ডা. তারেক আলম।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author