আর্ন্তজাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের কাজে স্থবিরতা দেখা দিয়েছে, এমন অভিযোগ খোদ প্রসিকিউশনের। সংস্থাটির ৮ বছর পূর্তি উপলক্ষে মোহনা টেলিভিশনের সঙ্গে একান্ত সাক্ষাতকারে এ কথা জানিয়েছেন ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ। সঙ্কট কাটাতে ফের ট্রাইব্যুনাল-২ চালু ও জনবল নিয়োগসহ অবকাঠামো সংস্কারের দাবি জানিয়েছেন তিনি।

মুক্তিযুদ্ধকালে পাকিস্তানি বাহিনীর মদদে হত্যা, ধর্ষণ, বাড়িঘর পুড়িয়ে দেয়াসহ নিরীহ বাঙালিদের ওপর বর্বর নিপীড়ন চালায় রাজাকাররা। মানবতাবিরোধী এসব অপরাধের বিচারে ২০১০ সালের ২৫ মার্চ আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল গঠন করে আওয়ামী লীগ  সরকার।

কার্যক্রম শুরুর ৬ বছরে আত্মস্বীকৃত ও চিহ্নিত ৬ শীর্ষ যুদ্ধাপরাধীকে মৃত্যুদণ্ড দেন ট্রাইব্যুনাল। এখন পর্যন্ত ৩১টি মামলায় ৬৮ জনের বিরুদ্ধে রায় দিয়েছে ট্রাইব্যুনাল। যেখানে ৪২ জনের ফাঁসি ও ২৬ জনকে সাজা দেয়া হয়েছে বিভিন্ন মেয়াদে।

বর্তমানে চলছে ৩১ মামলার বিচারকাজ। রায়ের জন্য অপেক্ষমান একটি। তদন্ত চলছে ৩০টির। স্বাধীনতাবিরোধীদের সাজা নিশ্চিতের মধ্য দিয়ে জাতির দায়মুক্ত হয়েছে বলে মনে করেন ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর।

ট্রাইব্যুনালের কার্যক্রম বাধাগ্রস্থ হচ্ছে পুরনো সমস্যা সমাধান না হওয়ায়, বললেন তুরিন আফরোজ।  ২০১৫ সালে নিষ্ক্রিয় হওয়া ট্রাইব্যুনাল-২ ফের চালু এবং অবকাঠামো ও লোকবল সঙ্কট সমাধানের তাগিদ দিয়েছেন তিনি।

 

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author

Leave a comment