প্রতিদিন কেউ না কেউ হাতিয়ে নিচ্ছে কষ্টের উপার্জনের টাকা। অথচ রা নেই কারো মুখে। পুলিশ ও রাজনৈতিক প্রভাবশালী ব্যক্তিদের নিয়মিত মাসোহারা দিলেও, অজানা ভয়ে প্রতিবাদ করার সাহস হারিয়েছেন মিরপুর ১০ থেকে ১৪ নম্বর পর্যন্ত প্রধান সড়কের দুপাশে অবৈধভাবে বসা ফুটপাত ব্যবসায়ীরা। দোকান ভেদে প্রতিদিন তোলা হয় দেড়শো থেকে দুশো টাকা। অন্যদিকে, ফুটপাত বেদখল হয়ে যাওয়ায় চরম ভোগান্তি পোহাচ্ছেন পথচারীরা।

প্রথমে এড়িয়ে যেতে চাইলেন সবাই। যেন এক অজানা ভয়ে মুখ খুলতে রাজি নন কেউই। ফুটপাত ব্যববাসীদের এমন আচরণে সন্দেহ হওয়ায় অবলম্বন করতে হলো ভিন্ন পন্থা। আর তখনি বেরিয়ে এলো থলের বেড়াল।

এবার আবারো একই প্রশ্ন ফুটপাত ব্যবসায়ীদের কাছে। জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে অনেকেই স্বীকার করলেন নিয়মিত টাকা দেবার বিষয়টি। মিরপুর আইডিয়াল গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজ, আদর্শ স্কুল এবং হোপ ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের পাশের সড়কের ফুটপাত দখল করে চলছে রমরমা বাণিজ্য। কমপক্ষে ৫০০ অস্থায়ী দোকান রয়েছে এখানে। দরিদ্র এসব ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে দোকান অ্যাডভান্সের নামে ৪০ হাজার টাকা আদায়ের পাশাপাশি প্রতিদিন প্রতিটি দোকান থেকে ১৫০ থেকে ২০০ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে এক শ্রেণীর অসাধু মহল।

বিদ্যালয়ের সামনেই ফুটপাত থাকার কারণে প্রতিনিয়ত ইভটিজিংসহ নানা সমস্যার মুখোমুখি হচ্ছে পথচারীরা। প্রতিটি ওয়ার্ডে একটি করে বাজার স্থাপন করে পুনর্বাসনের দাবি জানিয়েছেন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা।

 

 

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author

Leave a comment