ত্রিভুবন বিমানবন্দরের নিয়ন্ত্রণকক্ষের ভুল বার্তার কারণেই এ দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে আবারো দাবি করেছে ইউএস বাংলা কর্তৃপক্ষ। এক ব্রিফিংয়ে এ দাবি করেছেন ইউএস বাংলার সিইও ইমরান আসিফ।

পাল্টা জবাবে নেপাল বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ বলছে, অবতরণের সময় পাইলট নিয়ন্ত্রণকক্ষের নির্দেশনা না মানায় দুর্ঘটনার কবলে পড়ে বিমানটি। দুর্ঘটনার সময় এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোল টাওয়ারে দায়িত্বরতদের মধ্যে ৬ কর্মকর্তাকে সরিয়ে নিয়েছে নেপালের বিমান কর্তৃপক্ষ।

এদিকে, বিধ্বস্ত বিমানের পাইলট আবিদ সুলতান চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। এ নিয়ে নিহতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ৫১ জনে। অন্যদিকে, দুর্ঘটনায় হতাহতদের ৪৬ স্বজন নিয়ে নেপালে পৌঁছেছে ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্সের আরেকটি বিমান। মরদেহ দেশে আনা ও আহতদের চিকিৎসা কার্যক্রম তদারকি করবেন স্বজনরা।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author

Leave a comment