ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক যেন মরণ ফাঁদ। একশ’২৫ কিলোমিটারের এ সড়কে প্রতিনিয়তই ঘটছে দুর্ঘটনা। গেল বছর বিভিন্ন স্থানে দুর্ঘটনা ঘটে শতাধিক। এতে হতাহতের শিকার তিন শতাধিক মানুষ। জান-মালের নিরাপত্তায় নানা উদ্যোগ নেয়া হলেও কমছে না দুর্ঘটনা।

১৯৯৮ সালে যমুনা নদীর ওপর বঙ্গবন্ধু বহুমুখী সেতুর উদ্বোধনের পর,ঢাকার সঙ্গে উত্তর ও উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের সড়ক যোগাযোগ অনেকটা সহজ হয়। ২৪ জেলার কয়েক হাজার যানবাহন প্রতিদিন এ সেতু দিয়ে চলাচল করছে। এ কারণে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে যানবাহনের চাপ বেড়ে যায়।

বেহাল দশার কারণে সড়কে যানবাহন চলাচল করতে গিয়ে প্রতিনিয়তই ঘটে দুর্ঘটনা। গেল বছর ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কসহ বিভিন্ন সড়কে ১২৫টি দুর্ঘটনা ঘটে। এতে ১১৪ জন নিহত ও অন্তত দুই শতাধিক আহত হয়।

যানজট আর দুর্ঘটনা রোধে অনেকটা হিমশিম খেতে হচ্ছে প্রশাসন ও স্বাস্থ্য বিভাগের লোকজনকে। ফায়ার সার্ভিস কর্মীদেরও সজাগ থাকতে হয় সবসময়।

মানুষের জান-মাল রক্ষায় মহাসড়কটি নিরাপদ রাখতে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে এমনটাই প্রত্যাশা ভুক্তভুগীদের।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author

Leave a comment