একাত্তরের যুদ্ধাপরাধীদের বিচার দাবির আন্দোলনে ইতিহাস সৃষ্টি করা গণজাগরণ মঞ্চের ৫ম বর্ষপূর্তি আজ। ইতিহাসের কলঙ্কমোচনের দাবিতে ২০১৩ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির দাবি নিয়ে শাহবাগে গণজাগরণ মঞ্চ নতুন এক আন্দোলনের উত্থান ঘটায়। মোহনাকে দেয়া একান্ত সাক্ষাতকারে,আগামী নির্বাচনে স্বাধীনতাবিরোধী শক্তিকে রুখে দিতে ৫ম বর্ষপূর্তি উপলক্ষে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আশাবাদ জানালেন গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্ররা। সেইসাথে জামাতের রাজনীতি নিষিদ্ধ করারও দাবি জানান তারা।

এই সেই ব্যক্তি যার কারনেই ঘুমন্ত বাঙালি জেগে উঠেছিল; লাখো কণ্ঠে ধ্বনিত হয়েছিল একটি দাবি। ব্লগার ও অনলাইন অ্যাকটিভিস্টদের ডাকে সেদিন শাহবাগের মোহনায় তৃতীয় প্রজন্মের প্রতিনিধিরা মিলেছিলেন স্বাধীনতার চেতনায়।বাঙ্গালির এ দেশাত্ববোধই জন্ম দিয়েছিলো গণজাগরণ মঞ্চের।

পরবর্তী বছরগুলোতে গণজাগরণ মঞ্চ পথ চলেছে অনেক চড়াই উৎরা্ইয়ের মধ্য দিয়ে।তিন অংশে ভাগ হয়ে পড়েছে সংগঠনটি।

গণজাগরণ মঞ্চের একাংশের মুখপাত্র ইমরান এইচ সরকার মনে করেন আগামী নির্বাচনে স্বাধীনতাবিরোধী জোটকে রুখে দিতে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার কোন বিকল্প নেই।

সকল প্রতিবন্ধকতা কাটিয়ে,৫ম বর্ষপূর্তিতে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনই সফলতা এনে দিতে পারে বলে মনে করেন মঞ্চের অপর দুই অংশের মুখপাত্ররা।

কেউ বলে শাহবাগের মোহনা, কেউ বা প্রজন্ম চত্বর আবার কেউ বলেন তৃতীয় প্রজন্মের মুক্তিযোদ্ধা। ৫ম বর্ষপূর্তিতে গণজাগরণমঞ্চ আবার পুরোনো রূপ ফিরে পাবে এমনটাই প্রত্যাশা সংশ্লিষ্টদের।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author

Leave a comment