কোটাপদ্ধতিতে এক শতাংশ বরাদ্দ থাকার পরও বিসিএসে নিয়োগ পাননি প্রতিবন্ধী পাঁচ শিক্ষার্থী। ইতোমধ্যে পেরিয়ে গেছে পাঁচ বছর। কোটা ভিত্তিতে নিয়োগ দেয়া হয়নি কাউকে। এমনকি মানা হয়নি হাইকোর্টের নির্দেশনাও। মেধাবী এ প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীরা এখন কামনা করছেন প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ।

মীর মোশাররফ হোসেন। ছোটবেলায় পোলিও রোগে দু’পায়ের শক্তি হারানো ছেলেটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করে।

এনায়েত কবির। রাজনৈতিক সহিংতায় পঙ্গুত্ব বরণ করা এ যুবক জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে নিয়েছেন স্নাতকোত্তর ডিগ্রী।

এ দুজনের মতোই বিসিএসে নিয়োগ না পেয়ে যেন থমকে গেছে আরও তিনজনের জীবন। ৩৪তম বিসিএস পরীক্ষায় অংশ নেয় তারা।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের ২০১৩ সালের প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী প্রতিবন্ধীদের জন্য বরাদ্দ ছিল ১ শতাংশ কোটা। কিন্তু সে বছর পিএসসি প্রতিবন্ধী কোটায় নিয়োগ দেয়নি একজনকেও।

নন-ক্যাডার তালিকায় থাকা পাঁচ প্রতিবন্ধীর রিটের প্রেক্ষিতে হাইকোর্ট ২০১৫ সালের ১৬ নভেম্বর রুল জারি করেন। গেলো বছরের ২৯ অক্টোবর হাইকোর্ট তাদের ৬০ দিনের মধ্যে নিয়োগের নির্দেশ দেন।

সময় পেরিয়ে যাবার পরও নিয়োগ না হওয়ায় তারা প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।

 

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author

Leave a comment