পার্কিং জোনে পরিণত হয়েছে মিরপুর ১৩ নম্বর

পার্কিং জোনে পরিণত হয়েছে মিরপুর ১৩ নম্বর সেকশনের ৪ নম্বর ওয়ার্ড এলাকার সড়কগুলো। কমিউনিটি সেন্টারের আশপাশের সড়কে বাস, লেগুনা পার্কিং করায় এলাকাটি হয়ে উঠেছে মাদক ও ছিনতাইয়ের স্বর্গরাজ্য। আর কমিউনিটি সেন্টারের আন্ডারগ্রাউন্ড নিয়ে পার্কিং ব্যবসা পরিচালনার অভিযোগ খোদ কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে। সরকারী সম্পদের এমন অপব্যবহারে একদিকে যেমন নাগরিক সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন এলাকাবাসী, অন্যদিকে পোহাতে হচ্ছে চরম ভোগান্তি।

ক্যামেরা দেখেই যেন ভ্যাবাচাকা খেলেন এই মাদকসেবী। কিছু জিজ্ঞেস করার আগেই ভো দৌড়। একেবারে মাঝ রাস্তা দখণ করে রাখা হয়েছে প্রাইভেট কার, বাস লেগুনাসহ অন্যান্য গাড়ি। পুরো রাস্তাটাই যেন পার্কিং এরিয়া।

কমিউিনিটি সেন্টারসহ আশপাশের রাস্তায় জমজমাট অবৈধ পার্কিং বাণিজ্য। গাড়ির আড়ালে চলে মাদকসেবন। জনগণের এমন অভিযোগ, পরিবেশ ভাল না হওয়ায় সরকারী অর্থে নির্মিত আধুনিক কমিউনিটি সেন্টারটি ব্যবহারে তৈরি হয়েছে অনীহা।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের কমিউনিটি সেন্টারের পার্কিং লটে রাখা যায় না অতিথিদের গাড়ি। সেখানে আর্থিক লেনদেনের মাধ্যমে রাখা হয় এলাকাবাসীর ব্যক্তিগত গাড়ি। রাস্তায় অবৈধ পার্কিং নিয়ে কাফরুল থানা কর্তৃপক্ষ মন্তব্য করতে রাজি হয়নি।

 

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author

Leave a comment