চিকিৎসকদের লেখায় ভোগান্তি

স্পষ্ট অক্ষরে পাঠোপযোগী ব্যবস্থাপত্র লিখতে চিকিৎসকদের প্রতি আদালতের নির্দেশনা রয়েছে। তবে এ নির্দেশনা মানছেন না বেশিরভাগ চিকিৎসক। এসব ব্যবস্থাপত্র পড়তে পারছেন না ওষুধ ব্যবসায়ীরাও। এতে করে ওষুধের ধরণ পাল্টে যাওয়ার পাশাপাশি ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে রোগিদের। আদালতের নির্দেশনার বাস্তবায়ন চাইলেন ভুক্তভোগীরা। আর নির্দেশনা না মানলে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানালেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচলক।

চিকিৎসকের দুবোর্ধ্য হাতের লেখার কারণে বিড়ম্বনায় পড়তে হয় রোগী, স্বজন ও ওষুধ দোকানিদের।

২০১৭ সালের ৯ জানুয়ারি পড়ার উপযোগী ব্যবস্থাপত্র লেখার জন্য চিকিৎসকদের  নির্দেশনা দেন উচ্চ আদালত। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরকে ৩০ দিনের মধ্যে সার্কুলার জারির নির্দেশনা দেয়া হলেও বাস্তবতা বলে ভিন্ন কথা। এ নিয়ে প্রশ্ন ছিলো স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালকের কাছে।

কম্পিউটারাইজড ব্যবস্থাপত্রে এ সমস্যা সমাধান সম্ভব বলে মনে করেন ভুক্তভোগীরা।

 

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author

Leave a comment