বিশ্বে করোনায় একদিনে মৃত্যু ১২ হাজার ৬৭৯

বিশ্বজুড়ে গত একদিনে আরও সাড়ে ১২ হাজারের
বেশি মানুষের প্রাণহানি ঘটেছে। ফলে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৫ লাক ১১ হাজার
ছাড়িয়েছে। নতুন করে ভাইরাসটির শিকার হয়েছেন পৌনে সাত লাখ মানুষ। ফলে
আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৬ কোটি ৫৫ লাখ অতিক্রম করেছে। এছাড়া, আগের চেয়ে
সুস্থতা বাড়লেও মোট আক্রান্তের তুলনায় তা পিছিয়ে। 

বিশ্বখ্যাত জরিপ সংস্থা ওয়ার্ল্ডওমিটারের তথ্যানুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বে করোনা শনাক্ত হয়েছে ৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৩১ জনের দেহে। এ নিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬ কোটি ৫৫ লাখ ১৬ হাজার ২৫১ জনে। নতুন করে ১২ হাজার ৬৭৯ জন মারা যাওয়ায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৫ লাখ ১১ হাজার ১০১ জনে ঠেকেছে। 

আক্রান্তদের মধ্যে এখন পর্যন্ত সুস্থতা লাভ করেছেন ৪ কোটি ৫৩ লাখ ৬৪ হাজার ভুক্তভোগী। এর মধ্যে গত একদিনেই বেঁচে ফিরেছেন ৪ লাখ ৩৫ হাজার ৫১১ জন রোগী। 

গত বছরের ডিসেম্বরে চীন থেকে সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর বিশ্বব্যাপী এ পর্যন্ত ২১৮টি দেশ অঞ্চলে ছড়িয়েছে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস। গত ১১ মার্চ করোনাভাইরাস সংকটকে মহামারি ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।

এর মধ্যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সবকটি অঙ্গরাজ্যেই দীর্ঘ হয়ে চলেছে করোনা রোগীর সংখ্যা। দেশটিতে এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ১ কোটি ৪৫ লাখ ৩৫ হাজার ১৯৬ জন। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ২ লাখ ৮২ হাজার ৮২৯ জনের।

সংক্রমণের হারে দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা ভারতে এখন পর্যন্ত আক্রান্ত ৯৫ লাখ ৭২ হাজার প্রায়। মৃত্যু হয়েছে এক লাখ ৩৯ হাজার ২২৭ জনের। প্রাণহানিতে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ও সংক্রমণে তিনে থাকা ব্রাজিলে এখন পর্যন্ত করোনার শিকার ৬৪ লাখ ৮৭ হাজারের বেশি। মৃত্যু হয়েছে ১ লাখ ৭৫ হাজার ৩০৭ জনের। রাশিয়ায় এখন পর্যন্ত করোনার ভুক্তভোগী ২৩ লাখ ৭৫ হাজারের বেশি মানুষ। এর মধ্যে প্রাণ হারিয়েছেন ৪১ হাজার ৬০৭ জন।

দ্বিতীয় তরঙ্গে মহামারি গতি বাড়ছে যুক্তরাজ্যে। এমতাবস্থায় নতুন করে চার সপ্তাহের লকডাউন চলছে সেখানে। এখন পর্যন্ত সেখানে করোনা হানা দিয়েছে ১৬ লাখ ৭৪ হাজার মানুষের দেহে। এর মধ্যে প্রাণ ঝরেছে ৬০ হাজার ১১৩ জনের। 

একইপথে ইউরোপের আরেক দেশ ইতালি। দ্বিতীয়
দফায় ক্রমেই করোনা ভয়াবহ রূপ নেয়ায় গত ৬ নভেম্বর থেকে সেখানে লকডাউন জারি
হয়েছে। দেশটিতে এখন পর্যন্ত ১৬ লাখ ৬৫ হাজার মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।
এর মধ্যে প্রাণহানি ঘটেছে ৫৮ হাজার ৩৮ জনের। সুস্থতা লাভ করেছেন
দুই-তৃতীয়াংশ রোগী। 

মেক্সিকোয় করোনার ভুক্তভোগী ১১ লাখ ৩৪ হাজারের কাছাকাছি। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ১ লাখ ৭ হাজার ৫৬৫ জনের। মৃত্যু হারে যা যেকোন দেশের তুলনায় সর্বোচ্চ। 

আবারও যুক্তরাষ্ট্রে সর্বোচ্চ আক্রান্ত ও প্রাণহানির রেকর্ড হয়েছে। এদিকে, ফাইজার ও বায়োএনটেকের করোনা টিকার প্রথম চালান হাতে পেয়েছে যুক্তরাজ্য। বিভিন্ন হাসপাতালে পাঠানোর জন্য মূল বিতরণ কেন্দ্রে টিকাগুলো রাখা হয়েছে।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author