যুক্তরাষ্ট্রে নাইটক্লাবে হামলায় ৩ জন নিহত

যুক্তরাষ্ট্রে একটি নাইটক্লাবে বন্দুকধারীদের হামলায় ৩ জন নিহত ও কয়েকজন আহ্ত হয়েছে। বুধবার, হিউস্টন শহরের ডিডি স্কাই ক্লাবে হামলা চালায় বন্দুকধারীরা। ওই সময় ক্লাবটিতে অন্তত ৩০ জন মানুষ ছিলো বলে জানা গেছে। নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে বলে আশঙ্কা করছে পুলিশ। হামলাকারীদের সন্ধানে শহরজুড়ে তল্লাশি অভিযান শুরু করেছে পুলিশ।

পুলিশ সূত্রে খবর, স্থানীয় সময় মঙ্গলবার দিবাগত রাত পৌন ১০টা নাগাদ হিউস্টন শহরের ডিডি স্কাই ক্লাবে হামলা হয়। হিউস্টন পুলিশের কম্যান্ডার ক্যারোলেটা জনসন জানান, নৈশক্লাবের শুটিংয়ে এ পর্যন্ত তিন জন মারা গিয়েছেন। চতুর্থ জনের অবস্থাও আশঙ্কাজনক। পুলিশের ধারণা, কমপক্ষে ২ জন বন্দুকবাজ ছিল।

তবে, হামলাকারীদের সম্পর্কে বিশদ তথ্য এখনও পুলিশের কাছে নেই। ঘটনার সময় ওই নৈশক্লাবে থাকা কেড ট্রামেল নামে এক ব্যক্তি সংবাদ সংস্থার কাছে দাবি করেন, তিনি ও তার বন্ধু প্রাণ হাত করে নাইটক্লাব থেকে পালিয়ে আসার আগে পর্যন্ত ৭ থেকে ১০টি গুলির শব্দ শুনেছেন। ওই ব্যক্তির বর্ণনা অনুযায়ী, গুলি চলার সময় মেঝেতে পড়ে গিয়ে কোনওরকমে নিজেদের রক্ষা করি। তার পর, পড়িমরি আমরা দুই বন্ধু নাইটক্লাব থেকে পালিয়ে আসি। এই যুবক একজন লোকাল হিপহপ শিল্পী। বছর কুড়ির ট্রামেলের কথায়, গুলির শব্দে ক্লাবের মধ্যে হুড়োহুড়ি পড়ে যায়। নিজের প্রাণ রক্ষায় যে যার মতো দিগ্বিদিক জ্ঞানশূন্য হয়ে ছুটতে থাকে। ভয়ে আমরাও দৌড় দিই। যত দ্রুত সম্ভব নাইটক্লাবের বাইরে বেরিয়ে আসার চেষ্টা করেছিলাম।

তার পর, পড়িমরি আমরা দুই বন্ধু নাইটক্লাব থেকে পালিয়ে আসি। এই যুবক একজন লোকাল হিপহপ শিল্পী। বছর কুড়ির ট্রামেলের কথায়, গুলির শব্দে ক্লাবের মধ্যে হুড়োহুড়ি পড়ে যায়। নিজের প্রাণ রক্ষায় যে যার মতো দিগ্বিদিক জ্ঞানশূন্য হয়ে ছুটতে থাকে। ভয়ে আমরাও দৌড় দিই। যত দ্রুত সম্ভব নাইটক্লাবের বাইরে বেরিয়ে আসার চেষ্টা করেছিলাম।

২০১৭ সালের নভেম্বরে টেক্সাসের সাদারল্যান্ড স্প্রিংয়ের চার্চে বন্দুক হামলায় ২৬ জন নিহত হওয়ার পর মার্কিন প্রেসিডেন্টে ডোনাল্ড ট্রাম্প এক প্রতিক্রিয়ায় জানিয়েছিলেন, বিশ্বের অন্য আরও দেশের মতো আমেরিকাতেও মানসিক অবসাদগ্রস্তের সংখ্যা বাড়ছে। ট্রাম্পের এই মন্তব্য ঘিরে সে সময় বিস্তর সমালোচনা হয়েছিল

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author