নোয়াখালীতে গৃহবধূ নির্যাতন: দেলোয়ার ৭ দিনের রিমান্ডে

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার একলাশপুর ইউনিয়নে চাঞ্চল্যকর গৃহবধূকে ধর্ষণ মামলার প্রধান আসামি দেলোয়ার হোসেন দেলুর সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। এর আগে তিনটি মামলায় ১৭ দিনের রিমান্ডের আবেদন করে তাকে আদালতে হাজির করে বেগমগঞ্জ মডেল থানা-পুলিশ।

রোববার (১৮ অক্টোবর) সকালে রিমান্ড চেয়ে দেলোয়ারকে নোয়াখালী চিফ জুডিশিয়াল
ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করেন ধর্ষণ মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই
হাবিবুর রহমান এবং অস্ত্র ও বিস্ফোরক মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মীর
হোসেন।

সহকারী পাবলিক প্রসিকিউটর (এপিপি) অ্যাডভোকেট সাইফুল ইসলাম হারুন জানান,
সকালে দেলোয়ারকে ধর্ষণ মামলায় ৭ দিন, অস্ত্র মামলায় ৫ দিন ও বিস্ফোরক
মামলায় ৫ দিনসহ মোট ১৭ দিনের রিমান্ডের আবেদন করে চিফ জুডিশিয়াল
ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ২নং আমলি আদালতে হাজির করা হয়। আদালতের জ্যেষ্ঠ
বিচারিক হাকিম মাসফিকুল হক শুনানি শেষে ধর্ষণ মামলায় ৫ দিন ও অপর দুটি
মামলায় ২ দিনসহ দেলোয়ারের মোট ৭ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এ ছাড়া
বেগমগঞ্জ থানার দুটি হত্যা মামলায় দেলোয়ার হোসেনকে (শোন এরেস্ট) সমন ছাড়া
গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত ২ সেপ্টেম্বর রাতে ওই নারীর আগের স্বামী তার সঙ্গে দেখা করতে
তার বাবার বাড়ি একলাশপুর ইউনিয়নের জয়কৃষ্ণপুর গ্রামে এসে তাদের ঘরে ঢুকেন।
বিষয়টি দেখে পেলে স্থানীয় মাদক ব্যবসায়ী ও দেলোয়ার বাহিনীর প্রধান দেলোয়ার।
রাত ১০টার দিকে দেলোয়ার তার লোকজন নিয়ে ওই নারীর ঘরে প্রবেশ করে পর
পুরুষের সঙ্গে অনৈতিক কাজ ও তাদের কুপ্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় তাকে মারধর
শুরু করে। একপর্যায়ে পিটিয়ে নারীকে বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণ করে। ৪ অক্টোবর
দুপুরে ওই ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে জেলায় তথা দেশব্যাপী
তোলপাড় সৃষ্টি হয়। এ ঘটনায় এ পর্যন্ত ১১জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।
গৃহবধূকে বিবস্ত্র করে নির্যাতন ও পর্নোগ্রাফি মামলা দুটি পিবিআই তদন্ত
করছে। গৃহবধূর দায়ের করা ধর্ষণ, র‌্যাবের করা বিস্ফোরক ও অস্ত্র আইনে মামলা
তিনটি বেগমগঞ্জ মডেল থানা পুলিশ তদন্ত করছে।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author