এক দশকে খেলাপি ঋণ বেড়েছে ৯ হাজার ৪শ কোটি টাকা

দেশে এক দশকে খেলাপি ঋণ বেড়েছে ৪শ’১৭ শতাংশ। আর ২০০৯ সালের পর থেকে প্রতিবছর গড়ে খেলাপি ঋণ বেড়েছে ৯ হাজার ৩শ ৮০ কোটি টাকা। এমন তথ্য উঠে আসে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ, টিআইবি’র প্রতিবেদনে। মঙ্গলবার (২২ সেপ্টেম্বর) সকালে ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে, দেশের ব্যাংকিং খাতে খেলাপি ঋণ কমিয়ে আনতে একটি স্বাধীন ব্যাংকিং কমিশন গঠন ও ব্যাংক কোম্পানি আইনের দু’টি ধারা সংশোধনসহ ১০টি সুপারিশ তুলে ধরে সংস্থাটি।

ব্যাংকিং
খাত তদারকি ও খেলাপি ঋণ নিয়ন্ত্রণ: বাংলাদেশ ব্যাংকের সুশাসনের চ্যালেঞ্জ ও
উত্তরণের উপায় শীর্ষক ভার্চুয়াল ব্রিফিং করে  টিআইবি। ২০০৯ সালে মোট খেলাপি ঋণ ছিল ২২ হাজার
৪৮১ কোটি টাকা।  তা এখন এসে দাঁড়িয়েছে ১
লাখ ১৬ হাজার ২৮৮ কোটিতে। এমন তথ্য উঠে আসে সংস্থাটির গবেষনা প্রতিবেদনে।  

নির্বাহি
পরিচালক ডক্টর ইফতেখারুজ্জামান জানান, প্রতিবছর গড়ে খেলাপি ঋণ বেড়েছে ৯ হাজার ৩শ
৮০ কোটি টাকা। এখাতে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার ঘাটতির পাশাপাশি  রাজনৈতিক ও ব্যবসায়িদের প্রভাবে খেলাপি ঋন বাড়ছে
বলেও মন্তব্য করেন তিনি।  

এ খাতে খেলাপি ঋণ কমাতে গভর্নর,ডেপুটি গর্ভনর,পর্ষদ সদস্যদের অপসারণ নীতিমালসহ ১০
দফা সুপারিশ তুলে ধরেন সংস্থাটির নির্বাহি পরিচালক।

ব্যাংকের
তদন্ত প্রতিবেদন তৈরি ও বাস্তবায়নে সংঘটিত অনিয়ম-দুর্নীতির সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে
দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে বলেও মনে করেন ডক্টর ইফতেখারুজ্জামান।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author