করোনার ছোবলে বিপর্যস্ত নিম্নআয়ের মানুষ

করোনার ছোবলে বিপর্যস্ত নিম্নআয়ের মানুষের জীবন জীবিকা। দারিদ্রের হার গত বছরও যেখানে ছিল ১৯ শতাংশে, এবার এক ধাক্কায় ৪৩ শতাংশে গিয়ে ঠেকেছে।

এ বছর করোনার ছোবলে দেশে দারিদ্রের হার বেড়েছে গত বছরের তুলনায় দ্বিগুণেরও বেশি। গত বছরও যেখানে ছিল ১৯ শতাংশ, এবার তা এক ধাক্কায় ৪৩ শতাংশে পৌছেছে।

করোনায় সবচেয়ে বেশি ধকল পোহাতে হচ্ছে বস্তির মানুষকে। বস্তিবাসীর জীবন জীবিকা চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছে। শহরে কিছুটা হলেও রোজগারের ব্যবস্থা আছে, যা গ্রামে একেবারেই নেই। তাই কোনমতে আধপেটা খেয়েই জীবনযাপন করতে হচ্ছে।

করোনার প্রথম ধাক্কাটি পড়ে নিম্নআয়ের মানুষের ওপর। মার্চের শেষে অঘোষিত লকডাউনের সুবাদে বেকার হয়েছেন অসংখ্য মানুষ। পরিকল্পনা অথবা সিদ্ধান্তহীনতার কারণে সরকারের সামাজিক নিরাপত্তা বেস্টনিও কোন উপকারে আসেনি।

যেহেতু কোন না কোনভাবে জাতীয় অর্থনীতিতে অবদান আছে, তাই বস্তিবাসীকে বাদ দিয়ে টেকসই উন্নয়ন সম্ভব নয়। সেক্ষেত্রে তাদের নিরাপদ জীবন নিশ্চিত করার ব্যবস্থা নিতে সরকারকে তাগিদ দিয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজ কল্যাণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের প্রফেসর ড. এম শাহীন খান। এ বিশেষজ্ঞের মতে, কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করে বেকার জনগোষ্ঠীকে কর্মমুখী করতে পারলে গ্রামীণ ও জাতীয় অর্থনীতি সমৃদ্ধ হবে।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author