রিমান্ড শেষে কারাগারে লোপা তালুকদার

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি এলাকা থেকে ফুল বিক্রেতা শিশু জিনিয়াকে অপহরণের ঘটনায় গ্রেফতার নূর নাজমা আক্তার লুপা তালুকদারের জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন আদালত।

শুক্রবার (১১ সেপ্টেম্বর) বিকালে শুনানি শেষে ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট রাজেশ চৌধুরী এ আদেশ দেন। আদালতের সংশ্লিষ্ট সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

শুক্রবার শাহবাগ থানার মামলায় তদন্ত কর্মকর্তা রমনা জোনাল টিমের এস আই মো. শাহজাহান মিয়া দুই দিনের রিমান্ড শেষে লুপাকে আদালতে হাজির করেন। একইসঙ্গে মামলার তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন। এ সময় আসামিপক্ষে আতাহার হোসেন ফরাজী জামিন চেয়ে শুনানি করেন।

অন্যদিকে জামিনের বিরোধিতা করেন রাষ্ট্রপক্ষের সংশ্লিষ্ট থানার আদালতের সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা শরিফুল ইসলাম। উভয় পক্ষের শুনানি শেষে আদালত জামিন আবেদন খারিজ করে লোপাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। গত ৮ই সেপ্টেম্বর আদালত লোপার দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে। আদালত ওই দিন জিনিয়াকে তার মা সেনুরা বেগমের জিম্মায় রাখার আদেশ দেন। 

আসামি পক্ষের আইনজীবী আতাহার হোসেন ফরাজী জামিন চেয়ে শুনানি করেন। অন্যদিকে, রাষ্ট্রপক্ষ জামিনের বিরোধিতা করেন। উভয় পক্ষের শুনানি শেষে আদালত জামিন নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

এর আগে গত ৮ সেপ্টেম্বর লোপার দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

শিশু জিনিয়ার মা সেনুরা বেগম মেয়েকে নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় থাকেন। গত ১ সেপ্টেম্বর রাত ৯টার দিকে জিনিয়াকে টিএসসি সংলগ্ন সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের ফটকে অপরিচিত দু’জন নারীর সঙ্গে ফুচকা খেতে দেখেছিলেন তার মা সেনুরা বেগম। এরপর থেকে জিনিয়ার হদিস পাওয়া যাচ্ছিল না। মেয়েকে খুঁজে না পেয়ে তিনি শাহবাগ থানায় জিডি করেন।

পরে ৭ সেপ্টেম্বর শাহবাগ থানায় অপহরণের মামলা করেন তিনি। এ মামলার পর নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থানার আমতলা এলাকায় অভিযান চালিয়ে জিনিয়াকে উদ্ধার করে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। এ ঘটনায় নূর নাজমা আক্তার লুপা তালুকদারকে গ্রেপ্তার করা হয়। উল্লেখ্য, নানা অপকর্মের অভিযোগ রয়েছে লুপার বিরুদ্ধে। তার বিরুদ্ধে বেশ কিছু মামলা রয়েছে বলে জানা গেছে।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author