আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে নির্বাসিত হতে পারে দ. আফ্রিকা

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে নির্বাসিত হতে পারে দক্ষিণ আফ্রিকা। দেশটির ক্রিকেট বোর্ডের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে সরকারি হস্তক্ষেপের অভিযোগ উঠেছে। আইসিসির নিয়ম অনুযায়ী ক্রিকেট বোর্ডে সরকারি হস্তক্ষেপ অবৈধ। সরকারের এমন আচরণের জন্য দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পারে আইসিসি। এমনকি সরকারের নির্দেশে দেশটির অলিম্পিক সংস্থা ক্রিকেট দক্ষিণ আফ্রিকার (সিএসএ) পরিচালনার দায়িত্ব নিজেদের হাতে তুলে নিয়েছে বলে খবর প্রকাশ হয়েছে।

আপাতত এক মাসের জন্য বোর্ডের কাজ পরিচালনা করার দায়িত্ব দেয়া হয়েছে “সাউথ আফ্রিকা স্পোর্টস কনফেডারেশন অ্যান্ড অলিম্পিক কমিটিকে”। তবে বোর্ডের নিয়ন্ত্রণ সরকার নিয়ে নেয়াকে দেখা দিতে পারে নতুন বিপত্তি।

আইসিসির নিয়ম অনুযায়ী যেকোনো দেশের ক্রিকেট বোর্ডে সরকারি হস্তক্ষেপ অবৈধ। এমনটা ঘটলে সংশ্লিষ্ট দেশকে নিষিদ্ধ হতে হবে, এটাই আইসিসির নিয়ম। এর আগে বর্ণবাদের কারণে প্রায় ২২ বছর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নিষিদ্ধ ছিল দক্ষিণ আফ্রিকা। তবে কি আবারও নিষেধাজ্ঞার কবলে পড়তে যাচ্ছে দেশটি? ক্রিকেট ভক্তদের মাঝে এখন এই শঙ্কা।

ক্রিকেট বিষয়ক ওয়েবসাইট ক্রিকবাজ তাদের প্রতিবেদনে বলেছে, দুর্নীতির অভিযোগে দক্ষিণ আফ্রিকার সরকার দেশের ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালনা পর্ষদ ভেঙে দিয়েছে।

দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট বোর্ডের কর্তাদের বিরুদ্ধে অনিয়ম আর দুর্নীতির অভিযোগ তাদের। এখন দেশটির খেলাধুলোর সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা ক্রিকেট বোর্ডের দুর্নীতি ও অনিয়মের তদন্ত চালানোর জন্য শীঘ্রই কমিটি গঠন করতে ।

২০১৯ সাল থেকে দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেটে দুর্নীতি আর অব্যবস্থাপনার অভিযোগ এনে বোর্ড কর্মকর্তাদের সরে দাঁড়াতে বলেছে সরকার। তদন্ত কমিটি গঠনের পাশাপাশি বোর্ড পরিচালনার দায়িত্ব দিয়েছে সাউথ আফ্রিকা স্পোর্টস কনফেডারেশন অ্যান্ড অলিম্পিক কমিটিকে। বোর্ড নিয়ে সরকারের এমন পদক্ষেপকে স্বাভাবিকভাবে নেয়নি আইসিসি।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author