বৈরুতে সরকার বিরোধী বিক্ষোভ

দু’দফা ভয়াবহ বিস্ফোরণের পর সরকারবিরোধী বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ছে লেবাননে। ঝুঁকি জেনেও অ্যামোনিয়াম নাইট্রেটের মত মারাত্মক দাহ্য পদার্থ কেন বছরের পর বছর ফেলে রাখা হয়েছিল তার জবাব চেয়ে লেবাননের সরকারবিরোধী বিক্ষোভ করেছে হাজারো মানুষ। সরকারের দুর্নীতি, অব্যবস্থাপনা আর অবহেলার কারণেই এ বিস্ফোরণ ঘটে বলে অভিযোগ করেন প্রতিবাদকারীরা। পার্লামেন্ট ভবনের কাছে অবস্থান নিয়ে রাস্তায় আগুন দিয়ে, দোকানপাট ভাংচুর করে তারা।

দেশটির পার্লামেন্টের কাছে বৃহস্পতিবার (৬ আগস্ট) সন্ধ্যায় বিক্ষোভ শুরু হলে পুলিশ তাদের থামাতে টিয়ার গ্যাস ব্যবহার করে বলে জানায় বিবিসি।

অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট মারাত্মক দাহ্য, যেকোনো সময় ঘটতে পারে বিস্ফোরণ। সব জেনেও বৈরুত বন্দরের কাছের একটি গুদামে ২০১৩ সাল থেকে দুই হাজার ৭৫০ টন অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট অনিরাপদ অবস্থায় ফেলে রাখা হয়েছিল।আর এ কারণেই ঘটে ভয়াবহ বিস্ফোরণ। বিস্ফোরণের ধাক্কায় পুরো বৈরুত শহর ভূমিকম্পের মত কেঁপে ওঠে।

এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত ১৩৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছেন আরো পাঁচ হাজারের বেশি মানুষ। বিস্ফোরণে এত মানুষ আহত হয়েছেন যে তাদের চিকিৎসা দিতে হাসপাতালগুলোকে হিমশিম খেতে হচ্ছে। গণস্বাস্থ্য মন্ত্রী হামাদ হাসান আহতদের চিকিৎসায় সাহায্য করার আবেদন জানিয়েছেন।

ইতোমধ্যে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১৬ জনকে আটক করা হয়েছে বলে জানায় দেশটির রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা এনএনএ, যাদের মধ্যে বন্দরের মহাব্যবস্থাপকও রয়েছেন। বিস্ফোরণের পর বুধবার (৫ আগস্ট) এমপি মারওয়ান হামাদহ পদত্যাগ করেন। আরো দুই শীর্ষ সরকারি কর্মকর্তাও পদত্যাগ করেছেন।

এদিকে, বৈরুত সফরে গিয়ে, হতাহতদের সব ধরনের সহায়তায় আশ্বাস দেন ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোন। মঙ্গলবার (৪ আগস্ট) বৈরুতে ভয়াবহ বিস্ফোরণের ঘটনায় দেড় শতাধিক মানুষ নিহত ও  ৫ হাজার মানুষ আহত হয়।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author