শিক্ষক সংকটে সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়

শিক্ষক সংকটে দেশের অধিকাংশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। ৬৩ হাজার ৬০১টির মধ্যে ২১ হাজার বিদ্যালয়েই প্রধান শিক্ষক নেই। সহকারি শিক্ষকের শূন্যপদের সংখ্যাও প্রায় ৩০ হাজার। প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান জানালেন, মামলার কারণে নিয়োগ বাধাগ্রস্ত হলেও ২ থেকে ৩ বছরের মধ্যে শিক্ষক সংকট থাকবে না। আর মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিতে প্রাক-নিয়োগ প্রশিক্ষণেরও পরামর্শ শিক্ষাবিদদের।

শিক্ষার মূল কারিগর শিক্ষক। আর এই শিক্ষক সংকটে দেশের প্রায় ৫০ হাজার প্রাথমিক বিদ্যালয়। ইউনেস্কোর হিসাব অনুযায়ী, ৪৬ জন শিক্ষার্থীর বিপরীতে একজন শিক্ষকের কথা বলা হলেও তা নিশ্চিত করতে পেরেছে ৬১ দশমিক ৮ শতাংশ প্রাথমিক বিদ্যালয়। বর্তমানে একজন শিক্ষকের বিপরীত প্রায় ৬৮ জন শিক্ষার্থী।

মানসম্মত শিক্ষার জন্য দরকার প্রশিক্ষিত শিক্ষক। তাই প্রাক-নিয়োগ প্রশিক্ষণের পরামর্শ শিক্ষাবিদ রাশেদা কে চৌধুরীর। এদিকে, জাতিসংঘ ঘোষিত এসডিজি অনুসারে, মানসম্মত শিক্ষক নিয়োগে কাজ চলছে বলে জানান প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক।

আর প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী বললেন, পিএসসির মাধ্যমে মানসম্পন্ন শিক্ষক নিয়োগ করা হবে। মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত ও শিক্ষক সংকট নিরসনে সমন্বিতভাবে কাজ করার কথাও জানান মন্ত্রী।

 

পে-অফ

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author

Leave a comment