বুড়িগঙ্গায় লঞ্চডুবিতে ৩২ জনের সলিল সমাধি

বুড়িগঙ্গা নদীতে লঞ্চডুবিতে নিহত ৩২ জনের মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এখনও নিখোঁজদের সন্ধানে অভিযান চালাচ্ছে ফায়ারসার্ভিস, কোস্টগার্ডসহ বিভিন্ন সংস্থা। যোগ দিয়েছে দুটি হেলিকপ্টারও।  খুঁটিনাটি তদন্তের পর দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানিয়েছে নৌ-পুলিশ। এদিকে লঞ্চ দুর্ঘটনার কারণ অনুসন্ধানে আলাদা তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। আর হতাহতের ঘটনায় শোক জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রাণে বেঁচে যাওয়ারা জানান, সোমবার (২৯ জুন) সকালে মুন্সিগঞ্জের কাঠপট্টি থেকে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে আসে মর্নিংবার্ড। সদরঘাটের কাছাকাছি আসতেই ময়ুর-২ নামের একটি বিশলাকৃতির লঞ্চের নিচে চাপা পড়ে মুহুর্তেই তলিয়ে যায় মর্নিংবার্ড। ময়ুর-২ লঞ্চটি সদরঘাটের লালপট্টি থেকে চাঁদপুরের দিকে যাচ্ছিলো। অনেকেই ঝাঁপ দিয়ে বা ফাঁকফোকড় দিয়ে বেরিয়ে আসার পর সাঁতরে প্রাণে বেঁচেছেন। কিন্তু নিজে বাঁচলেও সঙ্গে থাকা মা-বাবা, ভাই বোন কিংবা স্বজনদের হারিয়েছেন চিরতরে। মিটফোর্ড হাসপাতালে মরদেহ খুঁজতে আসা পরিবারের সদস্যদের আহাজারিতে ভারি হয় সেখানকার পরিবেশ।

ফায়ারসার্ভিস জানায়, দুর্ঘটনাকবলিত লঞ্চটিতে একশজনের মতো যাত্রী ছিলো। দুর্ঘটনায় জড়িত ময়ুর-২ লঞ্চটিকে জব্দ করা হয়েছে। তবে পালিয়ে গেছেন চালক। নৌ-পুলিশ বলছে, খুঁটিনাটি তদন্তের পর দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author