স্বাভাবিক হয়ে এসেছে দেশের যোগাযোগ ব্যবস্থা

স্বাভাবিক হয়ে এসেছে সারাদেশের যোগাযোগ ব্যবস্থা। আজ থেকে ট্রেনের সংখ্যাও বাড়ানো হয়েছে। রেলের স্বাস্থ্যবিধি নিয়ে সন্তুষ্টি জানিয়েছেন যাত্রীরা। যদিও দুরপাল্লার বাস কাউন্টারগুলোতে শারিরিক দূরত্ব না মানার অভিযোগ পাওয়া গেছে। আর স্বাস্থ্যবিধি পালনে মারাত্মক অবহেলা দেখা গেছে লঞ্চ যাত্রীদের মাঝে। সদরঘাটে দায়িত্বরত পুলিশ কর্মকর্তারা বলছেন, আগামীতে নৌ-রুটের যাত্রীদের মাস্ক ব্যবহারের বিষয়টি কঠোরভাবে দেখভাল করা হবে।

শর্ত
সাপক্ষে করোনা ঝুঁকির মধ্যেই সারাদেশের যোগাযোগ ব্যবস্থা অনেকটাই স্বাভাবিক করে দেয়
সরকার। স্বাস্থ্যবিধির বেশকিছু শর্ত দেয়া
হয় রেল বিভাগের ওপরে। যাত্রীরা
বললেন, এখন পর্যন্ত ট্রেনযাত্রা নিরাপদ।

৩১ মে থেকে
৮ জোড়া ট্রেন দিয়ে পুনরায় চালু হয় রেল যোগাগোগ। বুধবার থেকে সারাদেশে আরো ১১ জোড়া ট্রেন সংযুক্ত করা হয়। কমলাপুর রেলস্টেশন কর্তৃপক্ষ জানায়, আগামী ১৫ জুন পর্যন্ত এ পদ্ধতিতেই ট্রেন চলবে।এদিকে, গণপরিবহন চালুর তৃতীয় দিনে গাবতলী টার্মিনালে
বসেছে জীবাণুমুক্ত টানেল। তবে মাস্ক ব্যবহার করছেন না অনেক যাত্রী ও বাস সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। চলছে জটলা পাকিয়ে আড্ডাও।

সরকারি নির্দেশনা
অনুযায়ী ৬০ শতাংশ বেশি ভাড়া নেয়ার কথা থাকলেও, দ্বিগুণ আদায়ের অভিযোগ
করেন কেউ কেউ। সদরঘাট লঞ্চ
টার্মিনালে প্রবেশের সময় স্বাস্থ্যবিধি সম্পর্কিত নির্দেশনা মানতে দেখা গেছে। কিন্তু বিপত্তি বাধে লঞ্চের ভেতরে। সেখানে যাত্রীরা বসছেন গাদাগাদি করে। মাস্ক ব্যবহারে অনীহা বেশিরভাগ যাত্রীদের মাঝেই। এ বিষয়ে লঞ্চ কর্তৃপক্ষও নির্বিকার।এছাড়া অভ্যন্তরীন চার রুটে বিমান চলাচল অব্যাহত রয়েছে।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author