করোনা ভাইরাসে মাস্কের ব্যবহার

করোনা ভাইরাস থেকে রক্ষায় এখন পর্যন্ত তেমন কোনো প্রতিষেধক তৈরি করতে সক্ষম হননি বিজ্ঞানীরা। মন্দের ভাল হিসেবে কিছু পুরনো ওষুধ ব্যবহারের পাশাপাশি সংক্রমণ ঠেকাতে ব্যবহার হচ্ছে মাস্ক। তারপরও প্রশ্ন আছে, মাস্ক করোনা ভাইরাস সংক্রমণ ঠেকাতে পারে কিনা। তবে এটি ঠিকমত ব্যবহার করতে না পারলে কোন কাজেই আসবে না।

বিশেষজ্ঞদের মতে, মাস্ক ব্যবহার করোনা প্রতিরোধে সহায়ক হতে পারে, তবে এটি সঠিক উপায়ে ব্যবহার করতে হবে। সার্জিক্যাল মাস্ক হয়ত ভাইরাস আটকাতে পারে। তবে নিখুঁতভাবে ব্যবহারের পরও কোনো ভাইরাস বা জীবাণু পিছলে গিয়ে নাক অথবা চোখের মাধ্যমে শরীরে প্রবেশ করতে পারে।

সার্জিক্যাল মাস্কের
দুটি অংশ থাকে। সামনের
দিকটা একটু হালকা নীল এবং পেছনের
অংশ সাদা রঙের। এ সাদা
অংশটা ফিল্টার, যা ভেদ করে জীবাণু
ঢুকতে পারে না। যারা
সুস্থ আছেন এবং ভাইরাস
বা জীবাণু প্রতিরোধ করতে
চান,
তাঁরা সাদা অংশটি বাইরে
রেখেই মাস্ক ব্যবহার করবেন। কেননা সাদা অংশ দিয়ে
ফিল্টার করেই বাতাস ভেতরে
ফুসফুসে ঢুকবে। নীল অংশটি
মুখের ভেতরে থাকবে। অথচ বেশির
ভাগ মানুষই সাদা অংশটি
মুখের ভেতরে রাখেন।

আবার কেউ যদি ঠাণ্ডা, জ্বর, হাঁচি, কাশি
বা অন্য কোনো রোগে
আক্রান্ত হন, তখন নীল অংশটি
বাইরে রেখে মাস্ক ব্যবহার
করবেন। এতে তাঁর
মুখ থেকে ক্ষতিকর কিছু
বাইরে যেতে বাধা পাবে
এবং অন্য কেউ সহজে
আক্রান্ত হবে না। অনেকে
মাস্ক থুতনি পর্যন্ত খুলে
রেখে কথাবার্তা বলেন। এটাও
ঠিক নয়। কারণ
এতে লেগে থাকা জীবাণু
সহজেই দেহে ছড়িয়ে পড়ে।

মাস্ক পরার
আগে অ্যালকোহল বেসড হ্যান্ডওয়াশ
বা সাবান দিয়ে ভালো
করে হাত-মুখ ধুতে
হবে। মাস্ক পরার
পাশাপাশি সঠিকভাবে খোলার বিষয়েও
সমান গুরুত্ব দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। খোলার সময় খেয়াল রাখতে
হবে,
যাতে কোনো ময়লা না লাগে
এবং একবারের চেষ্টাতেই খোলা
যায়। কোনভাবেই সামনের
দিক থেকে ধরে মাস্ক
খুলবেন না। ফিতে
বা রাবার ব্যান্ডের অংশ ধরে পেছন
থেকে মাস্কটি খুলে সরাসরি
অন্তত ১৫ মিনিট সাবান
পানিতে ভিজিয়ে রাখবেন। কাচার
পর মাস্কের ফিতে ক্লিপ
দিয়ে আটকে কড়া রোদে
শুকিয়ে নিন। পরার
আগে ৫ মিনিট বা তার বেশি
সময় ধরে ইস্ত্রি করে নিন।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author