দেশে শুরু হলো ভার্চুয়াল কোর্টের যাত্রা

আজ
থেকে দেশের আদালতগুলোতে চালু হচ্ছে ভার্চুয়াল বিচার ব্যবস্থা।
বিচারকাজ পরিচালনার জন্য প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন রোববার হাইকোর্ট
বিভাগের তিনটি
বেঞ্চ গঠন করেন। একই সঙ্গে চেম্বার বিচারপতি হিসেবে আপিল বিভাগের
বিচারপতি মো.
নূরুজ্জামানকে মনোনীত করা হয়েছে। এছাড়া অধস্তন আদালতে
শুধু জামিন
সংক্রান্ত বিষয়সমূহ তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার করে ভার্চুয়াল
উপস্থিতির মাধ্যমে নিষ্পত্তি করার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। সরকারের
এ সিদ্ধান্তে বিচার বিভাগের আধুনিকায়ন ও মামলা নিষ্পত্তিতে গতি আসবে বলে মত দেন
ডেপুটি অ্যার্টনি জেনারেল আবদুল্লাহ আল মাহমুদ বাসার।

করোনাভাইরাস
মোকাবেলায় সাধারণ ছুটির কবলে দেশ। সীমিত আকারে চলছে সরকারি অফিস ও শিল্প কারখানা।
তবে সংক্রমণ এড়াতে পুরোপুরি বন্ধ আদালত পাড়া। দীর্ঘ
সময় বিচারিক কার্যক্রম বন্ধ থাকায় মামলা জট বাড়তে পারে-এমন
আশঙ্কায় ভার্চুয়াল কোট পরিচালনার বিষয়ে গেজেট প্রকাশ করে সরকার। এ
সিদ্ধান্তকে যুগান্তকারী আখ্যা দেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

রোববার
প্রধান বিচারপতির সভাপতিত্বে ফুল কোর্ট সভা
হয়। যেখানে বিচারিক কার্যক্রম পরিচালনার জন্য
প্র্যাকটিস ডাইরেকশন অনুমোদনের পাশাপাশি তিনটি বেঞ্চ নির্দিষ্ট করে দেন প্রধান
বিচারপতি। সেইসঙ্গে নিম্ন আদালতের বিচারকার্য
পরিচালনার নীতিমালারও অনুমোদন দেয়া হয়।

ভার্চুয়াল
কোর্ট পরিচালনার সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানিয়েছেন আইনজীবীরা। এতে বিচার বিভাগ যেমন প্রযুক্তিনির্ভর
হবে, তেমনি
মামলা দ্রুত নিষ্পত্তির ফলে জট কমবে বলে জানান ডেপুটি অ্যার্টনি জেনারেল আবদুল্লাহ
আল মাহমুদ বাসার।

ভার্চুয়াল
আদালত শুধু আপদকালীন সময়ে নয় বরং জরুরি মামলার ক্ষেত্রে ব্যবহারের কথা বলেন এ আইন
কর্মকর্তা। এতে মামলা জট নিয়ন্ত্রণ এবং কাউকে বিনা বিচারে আটক রাখার প্রবণতা কমে
আসবে বলে মনে করেন তিনি।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author