আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সতর্কবার্তায় ভীত নয়: অং সান সুচি

রোহিঙ্গা সঙ্কট নিয়ে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সতর্কবার্তার বিষয়ে ভীত নয় মিয়ানমার সরকার- এমনটাই বললেন দেশটির রাষ্ট্রীয় উপদেষ্টা অং সান সুচি। সকালে, জাতির উদ্দেশ্যে দেয়া ভাষণে এ কথা বলেন তিনি। রাখাইনে কোন ধরণের জাতিগত নিধন হচ্ছে না,সব ধরণের মানবাধিকার লঙ্ঘনের নিন্দা জানান সুচি। ১৯৯৩ সালের বাংলাদেশ- মিয়ানমারের মধ্যে করা সমঝোতার ভিত্তিতে শরণার্থীদের যাচাই-বাছাই প্রক্রিয়া শুরু করার কথাও বলেন তিনি। এদিকে, রোহিঙ্গা ইস্যুতে অং সান সুচি বালুতে মুখ গোঁজার চেষ্টা করছেন বলে মন্তব্য করেছে মানবাধিকার বিষয়ক সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল।

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের ওপর চলছে সেনাবাহিনীর অবর্ণনীয় নির্যাতন। প্রাণে বাঁচাতে গত তিন সপ্তাহে চার লাখের বেশি রোহিঙ্গা আশ্রয় নিয়েছে বাংলাদেশে। সংকট সমাধানে অং সান সু চিকে চাপ দিচ্ছে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়।

এরই প্রেক্ষিতে জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দেন সু চি। রাখাইনে জাতিগত নিধনের বিষয়টি অস্বীকার করে সুচি বলেন, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে ভয় পায়না তার সরকার। কাউকে দোষারোপ করা বা দায় অস্বীকার করা মিয়ানমার সরকারের উদ্দেশ্য নয়, তবে আমরা আন্তর্জাতিক সতর্কবার্তাকে ভয় পাইনা।

রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে পালিয়ে যাওয়ার বিষয়ে উদ্বেগ জানিয়ে, সুচি বলেন, শরণার্থীদের যাচাই-বাছাইয়ের মাধ্যমে ফিরিয়ে নিতে প্রস্তুত তার সরকার। সব ধরণের মানবাধিকার লঙ্ঘণের নিন্দা জানাই আমরা। সব ধর্ম ও সম্প্রদায়ের মানুষকে রক্ষা করায় কাজ করে যাবে মিয়ানমার। আমরা শান্তি চাই, ঐক্য চাই। যুদ্ধ চাই না।

আনান কমিশনের সুপারিশ বাস্তবায়নে তার সরকার কাজ করবে বলেও ভাষণে উল্লেখ করেন অং সান সুচি।

এদিকে, অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল বলছে, রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে মিয়ানমারের এ নেত্রী নিজেকে আড়াল করছেন।

 

 

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author

Leave a comment