করোনা উপসর্গ নিয়ে বিভিন্ন জেলায় মৃত্যু

দিনাজপুরের বিরামপুরে করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে এক ব্যক্তি মারা গেছেন। যশোরে মারা গেছেন ২জন। সুনামগঞ্জে এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। শেরপুর ও কুষ্টিয়ায় মৃত্যু হয়েছে দুই জনের। এদিকে, বগুড়ার শিবগঞ্জে শ্বাসকষ্টে মারা যাওয়া যুবক করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ছিলেন না বলে নিশ্চিত করেছে প্রশাসন।

দিনাজপুরের বিরামপুরে করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে ৪০ বছরের এক ব্যক্তি মারা গেছেন। কয়েকদিন আগে কুমিল্লা থেকে নিজ বাড়ি বিরামপুর যান ওই ব্যাক্তি। মৃত ব্যক্তির নমুনা আইইডিসিআর এ পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় নিহতের পরিবারসহ আশেপাশের ৪০টি পরিবারকে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। যশোরে হোম কোয়ারেন্টাইন শেষে ১৬তম দিনে গোলাম মোস্তফা নামে মালয়েশিয়া ফেরত এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। এরআগে, আইসোলেশন ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন এক শিশুর মৃত্যু হয়। ১২ বছর বয়সের শিশুটিকে রোববার বিকেলে হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়।

সুনামগঞ্জ
শহরের পূর্ব নতুনপাড়ায় ৬০ বছর বয়সী নারীর কাশি ও শ্বাসকষ্টে মৃত্যু হয়েছে। এরপর
তার স্বামীকে করোনা পরীক্ষাকরণের জন্য সিলেটে পাঠানো হয়েছে। শেরপুরের
নালিতাবাড়ীতে তিন দিন শ্বাসকষ্টে ভোগার পর একজনের মৃত্যু হয়েছে। কুষ্টিয়ায় সর্দি,কাশি ও শ্বাসকষ্টে এক ঝালমুড়ি বিক্রেতার
মৃত্যু হয়েছে। এদিকে,
বগুড়ার শিবগঞ্জে শ্বাসকষ্টে মারা যাওয়া যুবক মাসুদ
রানা করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ছিলেন না। নমুনা পরিক্ষার রিপোর্ট হাতে পেয়ে এলাকায়
লকডাউন প্রত্যাহার করে নিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author