লাশের মিছিলে চীনকে ছাড়িয়েছে ইটালি

চীনকে ছাপিয়ে ইতালিতে হু হু করে বাড়ছে করোনা ভাইরাসে মৃতের সংখ্যা। স্থাপত্য, শিল্প ও সভ্যতার প্রাচীন এ দেশটিতে কেবলই লাশের মিছিল। রাস্তাঘাট সব ফাঁকা। কারণ কভিড-নাইনটিন থেকে বাঁচতে নিজগৃহে পরবাসী দেশটির প্রায় সাড়ে ৬ কোটি মানুষ।

মিলিটারি ট্রাকে করে শবদেহ নিয়ে যাওয়া হচ্ছে সৎকার করতে। পরিবার পরিজন কেউ শেষ দেখাটা দেখতে পারবে না। কারণ তারা গৃহবন্দি। স্বজনের মৃত্যুর খবরে দীর্ঘশ্বাস ফেলা আর অগোচরে কান্নাকাটি ছাড়া কিছুই করার নেই তাদের। জীবদ্দশায় অন্যের জন্য যতটা বিপজ্জনক,মারা যাওয়ার পর যেন তারচেয়েও বেশি ভয়ঙ্কর এ করোনা রোগী।

শিল্পীর গ্রাম, কবিদের শহর, স্বপ্নের দেশ ইতালি অসাড় হয়ে গেছে মৃত্যুর ভারে। কোথাও কেউ নেই। দিনের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত কেবলই সুনসান নিরবতা। পৃথিবীর পাঁচটি সবচেয়ে উন্নত চিকিৎসা ব্যবস্থা,স্বাস্থ্য পরিকাঠামোর কেন্দ্রই শুধু নয়, ইতালি ইউরোপের উন্নত এক দেশ,যার আছে হিংসা করার মতো স্থাপত্য, শিল্প ও সভ্যতা। সবই আজ বিপন্ন করোনা নামের ভাইরাসের কারণে।

ঠিক সময়ে সতর্ক করা হলেও পাত্তা দেয়নি ইতালির মানুষ। তারা ভেবেছিল চিকিৎসাবিজ্ঞান সব কিছু সামলে নেবে। তাই তারা রোজ সিনেমা দেখেছে, পার্টি করেছে আর মেলামেশা করেছে সবার সঙ্গে।

আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে হু হু করে। প্রতি ঘন্টায় একাধিক মানুষ মারা যাচ্ছে। ঘুম,
নাওয়া-খাওয়া এবং ছুটি নেই স্বাস্থ্যকর্মীদের। অক্লান্তভাবে লড়ে চলেছেন সবাই। সব চেষ্টা বৃথা করে দিয়ে অকাতরে মরছে আক্রান্তরা। চোখের সামনে এত মৃত্যু দেখে হাউমাউ করে কাঁদছেন চিকিৎসকসহ অনেক স্বাস্থ্যকর্মী।

ইতালির জনসংখ্যা মোটামুটি সাড়ে ৬ কোটি। এখন পর্যন্ত ৬৪ হাজারেরও বেশি মানুষ করোনাক্রান্ত হয়েছে। এর মধ্যে ৩ হাজারের বেশি স্বাস্থ্যকর্মী। সামনের দিনগুলোতে কী হবে তা আন্দাজ করাও দুরূহ। কারণ ওই
একটাই-নেই সঠিক চিকিৎসা। আর
প্রতিষেধক কবে আবিষ্কার হবে তা-ও অজানা।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author