করোনা ভাইরাসে ইতালি হয়ে উঠছে মৃত্যুপুরী

করোনা ভাইরাসে
দিন দিন ইতালি হয়ে উঠছে মৃত্যুপুরী। একদিনে মৃত্যুর রেকর্ড ছাড়িয়েছে দেশটি। গত ২৪ ঘন্টায় মারা গেছে প্রায় ৮শ’ জন। কভিড নাইনটিনে আক্রান্ত হয়ে বিশ্বজুড়ে এ পর্যন্ত মারা গেছে
১৩ হাজারের বেশি মানুষ। করোনার বিস্তার ঠেকাতে ভারতজুড়ে পালিত হয়েছে ১৪ ঘন্টার কারফিউ। কলকাতা  ও ২৩টি
জেলা
সদরে আগামীকাল থেকে চারদিনের লকডাউন ঘোষণা করেছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার।  

ইতালিতে চীনের
চেয়েও ভয়ানক থাবা বসিয়েছে করোনা ভাইরাস।মৃতের হিসেবে চীনকেও ছাড়িয়ে গেছে ইতালি। চীনে এ ভাইরাসে মৃত্যু হয়েছে ৩২৬১ জনের। আর ইতালিতে এ সংখ্যা ৪ হাজার ৮২৫। আক্রান্ত
হয়েছেন
৫৩
হাজার
৫৭৮
জন। শনিবার একদিনেই দেশটিতে ৭৯৩ জনের মৃত্যু
হয়েছে। এর মধ্যে লোমবার্দি শহরেই মারা গেছে
৫৪৬ জন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে দেশজুড়ে চলমান
লকডাউন আরও কঠোর করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

মৃতের হিসেবে তালিকার তৃতীয় স্থানে রয়েছে ইরান।দেশটিতে করোনাক্রান্ত হয়ে ১ হাজার ৫৫৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। রোগের সফল চিকিৎসায় চীনে ব্যবহৃত একটি ওষুধ শিগগিরই উৎপাদন করতে যাচ্ছে বলে ঘোষণা দিয়েছে তেহরান।

যুক্তরাষ্ট্রে আক্রান্ত
হয়েছে চতুর্থ সর্বোচ্চ ২৪হাজার
১১৬জন মানুষ। মৃত্যু
হয়েছে ২৮৮জনের।এমন পরিস্থিতিতে
নাগরিকদের ঘরে আবদ্ধ থাকার
আহ্বান জানিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড
ট্রাম্প। এদিকে, নমুনা পরীক্ষায় ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্সের শরীরে করোনা ভাইরাসের
কোন অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি।

স্পেনে এ
ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে ১৩শ’রও বেশি। তুরস্কে এ সংখ্যা ২১ আর ফিলিপাইনে ২৫ জন। গাজা উপত্যকায় প্রথম ২ জনের
শরীরে করোনার অস্তিত্ব পাওয়া গেছে।

করোনার বিস্তার ঠেকাতে দেশজুড়ে কারফিউ পালন করেছে ভারত সরকার। এর মধ্যেই বড় সিদ্ধান্ত নিয়েছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার৷ সোমবার বিকেল ৫টা থেকে ২৭ মার্চ মধ্যরাত পর্যন্ত কলকাতা-সহ রাজ্যের ২৩টি জেলা সদরে লক-ডাউনের বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে। এ সময়ে প্রকাশ্যে ৭ জনের বেশি জমায়েত হওয়া যাবে না ৷ এ পর্যন্ত বিশ্বের ১৮৮টি দেশ ও অঞ্চলে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে ৩ লাখ ৮ হাজার ২১৫ জন। মৃত্যু হয়েছে অন্তত ১৩ হাজার ৬২ জন। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৯৫হাজার ৮২৪জন।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author