রোহিঙ্গা গণহত্যার অনুমাননির্ভর অভিযোগ আনা হয়েছে

রোহিঙ্গা গণহত্যার অনুমাননির্ভর অভিযোগ আনা হয়েছে বলে দাবি করেছেন মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সিলর অং সান সু চি। নেদারল্যান্ডসের হেগে আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে রোহিঙ্গা গণহত্যা মামলার শুনানিতে এ কথা বলেন তিনি। জানান, আরাকান আর্মির সংঘর্ষে কারণে রাখাইনে অভ্যন্তরীন দ্বন্দ্ব শুরু হয়। এতে রোহিঙ্গারা ভয়ে বাংলাদেশে চলে যায়। হামলা অব্যাহত থাকায় সশস্ত্র গোষ্ঠীকে চিহ্নিত করা সম্ভব না হওয়ায় ঢালাওভাবে অভিযান চালায় সেনাবাহিনী।

বাংলাদেশ সময় বিকেল ৩টায় মিয়ানমারের পক্ষে যুক্তি উপস্থাপন শুরু করেন সু চি। মিয়ানমারে কোথাও মানবাধিকার লঙ্ঘিত হয়নি বলে দাবি করেন তিনি। সশস্ত্র সংগঠন আরসাকে ঠেকাতে সেনাবাহিনীর অপারেশনকে গাম্বিয়া ভুলভাবে ব্যাখ্যা করেছে বলেও দাবি তার। সু চি বলেন, সেনাবাহিনী যদি কোন অপরাধ করে থাকে তবে তা মিয়ানমারের নিজস্ব আইনে বিচার করা হবে। মামলাটির বিচারের এখতিয়ার এই আদালতের রয়েছে কি-না সে বিষয়েও প্রশ্ন তোলেন সুচি।

এদিকে, রোহিঙ্গা ও অন্যান্য সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে মানবাধিকার
লঙ্ঘনের অভিযোগে মিয়ানমারের সেনাপ্রধানসহ চার সেনা কর্মকর্তার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি
করেছে যুক্তরাষ্ট্র। মার্কিন অর্থমন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানায়, সেনাপ্রধান মিন অং
লেইংয়ের নির্দেশে মিয়ানমার সেনাবাহিনী মানবাধিকার লঙ্ঘনের মতো গুরুতর অপরাধ করেছে।
নিষেধাজ্ঞার ফলে ওই চার জনের যুক্তরাষ্ট্রে কোন সম্পদ থাকলে তা বাজেয়াপ্ত করা হবে
এবং তাদের সঙ্গে কোন মার্কিন নাগরিক ব্যবসা বাণিজ্য করতে পারবে না।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author