ভৈরব স্টেশনরোডে অহরহ ছিনতাই

কিশোরগঞ্জের ভৈরব স্টেশন রোড এখন মরন রোড হিসেবে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে। শহরের মূল রাস্তা থেকে মাত্র এক কিলোমিটারের কম দৈর্ঘ্য। মূল রাস্তা থেকে হেঁটে রেল ষ্টেশন যেতে মাত্র সময় লাগে ৭/৮ মিনিট, রিক্সায় গেলে মাত্র ৩/৪ মিনিট এই সময়ের মধ্যে আতঙ্কে কাটে রাস্তা চলাচলের যাত্রী ও সাধারণের। ঘটছে অহরহ ছিনতাইয়ের ঘটনা। ১২০ দিনে কমপক্ষে অর্ধশত ছিনতাই এর ঘটনা ঘটেছে। প্রশাসন বলছে, মাদক, ছিনতাই দমনে ষ্টেশন রোডে দিন-রাত নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

ঢাকা-চট্টগ্রাম রেল রুট ডাবল লাইন হওয়ায় বাড়ছে ট্রেনযাত্রী
সংখ্যা। কিন্তু নিরাপদ ভ্রমনে আতঙ্ক হয়ে দাঁড়িয়েছে ছিনতাই। এ রুটের কিশোরগঞ্জের ভৈরব
ট্রেন ষ্টেশনে পৌছার আগ মুহূর্তেই যাত্রীদের মূলবান জিনিসপত্র ছিনিয়ে নিচ্ছে ছিনতাইকারীরা।
আবার স্টেশন থেকে গন্তেব্যে পৌছানোর পথেও ছিনতাইয়ের কবলে পড়তে হচ্ছে। প্রতিরোধের চেষ্টা
করলে শিকার হতে হচ্ছে হামলার। প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোন ধরণের প্রতিকার না পেয়ে ভৈরব
স্টেশনের প্লাটফর্ম মানববন্ধন করেন যাত্রী ও স্থানীয়রা।

রাস্তার পার্শ্বে ঝোপ-ঝাড়ে লুকিয়ে থাকে ছিনতাইকারীরা।
ট্রেন আসা মাত্রই ঝাপিয়ে পড়ে যাত্রীদের ওপর। মানুষের জান-মাল নিরাপত্তায় উদ্বিগ্ন ভৈরববাসী দাবি
জানালেন রাস্তায় নিরবিচ্ছন্ন আলোর ব্যবস্থার।

ভৈরব রেলওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ ফেরদৌস মাহাবুব জানান,
নির্দিষ্ট্য সীমার মধ্যে যাত্রীদের নিরাপত্তা দিতে সচেষ্ট তারা। ছিনতাইয়ের ঘটনায় উদ্বেগ জানালেন ভৈরব থানার ভারপ্রাপ্ত
কর্মকর্তা মোকলেছুর রহমানও।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author