তেল শোধনাগারে ড্রোন হামলায় আবারও ইরানকে দায়ী করে
এর পক্ষে শিগগিরই প্রমাণ হাজির করা হবে বলে জানালো সৌদি আরব। হামলার দায় অস্বীকার
করে,একে ইয়েমেনের হাউথি বিদ্রোহীদের পক্ষ থেকে সতর্কবার্তা হিসেবে নেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন ইরানি প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি।
এদিকে, ড্রোন হামলার তদন্ত করতে রিয়াদে
বিশেষজ্ঞ দল পাঠানোর ঘোষণা দিয়েছে ফ্রান্স।

গত শনিবার সৌদি আরবের সবচেয়ে বড় তেল উৎপাদন কেন্দ্র আরামকোর দুটি
প্ল্যান্টে ড্রোন হামলা চালানো হয়। এরপরই হামলার দায় নিয়ে সৌদি আরব, যুক্তরাষ্ট্র ও ইরান জড়িয়ে পড়ে বাদানুবাদে।

ইয়েমেনের হাউথি বিদ্রোহীরা হামলার দায় নিলেও এর পেছনে ইরানের হাত রয়েছে বলে অভিযোগ তোলে যুক্তরাষ্ট্র ও সৌদি আরব। খুব
শিগগিরই এর প্রমাণ
হাজির করা হবে বলে জানায় রিয়াদ। ড্রোন
হামলার তদন্ত করতে রিয়াদে বিশেষজ্ঞ দল পাঠাবে ফ্রান্স।

তবে, হামলার
দায় পুরোপুরি অস্বীকার করে যুক্তরাষ্ট্রে কুটনৈতিক বার্তা পাঠিয়েছে ইরান। হামলার
জন্য অন্যকে দোষারোপ না করে একে হাউথিদের পক্ষ থেকে সতর্কবার্তা হিসেবে নেয়ার পরামর্শ দেন
প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি।

এদিকে,ক্ষতিগ্রস্ত
দুটি তেল শোধনাগার পুরোপুরি সচল হতে চলতি মাসের শেষ পর্যন্ত সময় লাগবে বলে
জানিয়েছেন সৌদি জ্বালানিমন্ত্রী প্রিন্স আব্দুল আজিজ বিন সালমান।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author