পানি নামতে শুরু করায় ধীরে ধীরে উন্নতি হচ্ছে দেশের উত্তরাঞ্চলের বন্যা পরিস্থিতির। পানি নামার সঙ্গে সঙ্গে ফুটে উঠছে বন্যার ক্ষয়ক্ষতির চিত্র। পাশাপাশি দেখা দিয়েছে খাদ্য সংকট। এদিকে,শরীয়তপুরসহ মধ্যাঞ্চলের বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে।

গাইবান্ধায় ঘাঘট ও ব্রহ্মপু্ত্রের পানি কমতে শুরু করায় সার্বিক বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হয়েছে। তবে এখনো পানিবন্দি আছেন জেলার কয়েক লাখ মানুষ। বন্যা কবলিত এলাকায় দেখা দিয়েছে খাদ্য সংকট। জেলা প্রশাসন থেকে ত্রাণ সহায়তা দেয়া হলেও তা প্রয়োজনের তুলনায় খুবই কম বলে অভিযোগ বন্যার্তদের।

ব্রহ্মপুত্র নদের পানি কমতে
শুরু করলেও শেরপুর সদর,শ্রীবরদী ও নকলা উপজেলার নিম্নাঞ্চলের অর্ধশত
গ্রামের প্রায় ২০ হাজার মানুষ পানিবন্দি রয়েছেন।

জামালপুরে পানি কমায় বাড়িঘরে ফিরতে শুরু করেছেন বানভাসি মানুষ। গত এক সপ্তাহের বন্যায় জেলার ২৮ হাজার হেক্টর জমির রোপা আমন ও সবজি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

কুড়িগ্রামের সার্বিক বন্যা পরিস্থিতির
আরও উন্নতি হলেও দেখা দিয়েছে খাবার সংকট।

সিরাজগঞ্জে যমুনার পানি কমতে শুরু করলেও এখনো বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। পানিবন্দি হয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন ৫ উপজেলার প্রায় ২ লাখ মানুষ।  দেখা দিয়েছে বিশুদ্ধ পানির অভাব।

এদিকে পদ্মার পানি বাড়ায় বন্যা
পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে শরীয়তপুর ও ফরিদপুরে। রাস্তাঘাট ও ফসলি জমি তলিয়ে যাওয়ার
পাশাপাশি বাড়িঘরে পানি ওঠায় চরম দুর্ভোগে পড়েছেন  বন্যাকবলিতরা।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author