নারীদের গৃহকর্মের স্বীকৃতি পেতে গণমাধ্যমের ভুমিকা রাখার আহ্বান

নারীরা সারাদিনের পরিশ্রমের ৪০ শতাংশই ব্যয় করেন পরিবার
ও স্বজনদের পেছনে। তাদের এ কাজের স্বীকৃতির পেতে সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গি ও
পুরুষদের মানসিকতার পরিবর্তন জরুরি। আর এনিয়ে জনসচেতনতা তৈরিতে গণমাধ্যমের
ভূমিকার ওপর জোর দিলেন উন্নয়নকর্মীরা।

রান্নাঘর থেকে শুরু করে সন্তান লালন-পালন, দোকান চালানো
কিংবা কৃষিকাজ- সবখানেই নারীর পদচারণা। ঘর সামলানো পর স্বামীর কাজের ভারও কাঁধে
তুলে নিচ্ছেন তারা। এমনই দুই নারী সাভারের গোলাপ গ্রামের ফাতিমা বেগম ও পুষ্পরাণী
সরকার।  সংসারের কাজের পাশাপাশি স্বামীর
মুদি দোকান সামলানো ও  মাঠে গিয়ে কৃষিকাজও
করছেন তারা। 

এতোসবের পরও মিলছে না তাদের পরিশ্রমের কোন স্বীকৃতি নারীর
গৃহশ্রমের স্বীকৃতি না থাকায় হাজারো কর্মঘন্টা থেকে যাচ্ছে চোখের আড়ালেই। যা
তাদের মর্যাদা প্রতিষ্ঠা ও ক্ষমতায়নের পথে বড় বাধা।  নারীর অধিকার রক্ষা ও বৈষম্য দূর করতে এসব কাজের
মূল্যায়ন জরুরি-এমনটা বলছে বেসরকারি সংস্থা, অ্যাকশন এইড।

উন্নয়ন কর্মীরা বলছেন, নারীকে তার প্রাপ্য সন্মান ও
মর্যাদা দিতে পুরুষদেরই এগিয়ে আসতে হবে। 

এনিয়ে জনমত তৈরিতে গণমাধ্যমকর্মীদের এগিয়ে আসার আহ্বানও
জানান তারা। সমাজে নারীর অধিকার ও
মর্যাদা প্রতিষ্ঠায় প্রস্তাবিত বাজেটে বিষয়টির ওপর নজর দেয়ার দাবি উন্নয়ন কর্মীদের।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author