এবারও
পুরনো আর ভাঙ্গাচোড়া লঞ্চ জোড়াতালি দিয়ে চলছে নৌপথে ঈদযাত্রার প্রস্তুতি। এ কারণে
দিন-রাত ব্যস্ত সময় পার করছেন, কেরানীগঞ্জের ডকইয়ার্ড শ্রমিকরা। আর বিআইডব্লিউটিএ
বলছে, লঞ্চের ফিটনেস সনদ পরীক্ষায় প্রয়োজনীয় লোকবল নিয়োগ করা হবে। তবে ঈদের সময়
অতিরিক্ত যাত্রীর চাপ থাকায় শতভাগ নজরদারি সম্ভব হয় না। 

লঞ্চের
বডির জরাজীর্ণ অংশ ছেটে ফেলা হচ্ছে। এখানে বসবে নতুন পাত।  পুরনো লঞ্চ মেরামতে কেরানীগঞ্জ ডকইয়ার্ডে এখন
রাজ্যের ব্যস্ততা। দিনভর হাতুরির টুকটাক শব্দ। বেশিরভাগ লঞ্চে ফ্যান্টার, প্লেট, রেলিং
এবং ইঞ্জিন পরিবর্তনের কাজ চলছে। কোন কোন লঞ্চের বেশিরভাগ অবকাঠামোই ছেটে ফেলা
হচ্ছে।

সবশেষ
দেয়া হয় রংয়ের প্রলেপ, যাতে পুরোনো ও জরাজীর্ণ চেহারা ঢেকে ফেলা যায়। কেরানীগঞ্জে
ত্রিশটির মতো ডকইয়ার্ডে মেরামতের অপেক্ষায় শ’খানেক পুরনো লঞ্চ।

ঈদের
সময় নৌ-পথে, স্বাভাবিকের চেয়ে প্রায় চারগুন বেশি যাত্রী চলাচল করে। তড়িঘড়ি করে
মেরামত করা এসব লঞ্চ দিয়েই সামলানো হবে অতিরিক্ত যাত্রীর চাপ। ফিটনেস সনদ পরীক্ষায়
নিজেদের প্রস্তুতির কথা বলছে বিআইডব্লিউটিএ। তবে অতিরিক্ত যাত্রীর কারণে লঞ্চের
ছোটখাট ত্রুটির বিষয়ে কঠোর হতে পারছে না সংস্থাটি। 

তারপরও
যাত্রী ও লঞ্চ মালিকদের সহযোগিতা পেলে, ঈদযাত্রা নির্বিঘ্ন করা সম্ভব বলে জানান
বিআইডব্লিটিএ চেয়ারম্যান।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author