সিলেটে আরো অর্ধশতাধিক গ্রাম প্লাবিত

টানা বৃষ্টিতে সিলেটে বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে। নতুন করে প্লাবিত হয়েছে অর্ধশতাধিক গ্রাম। একমাস ধরে পানির নিচে মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলা। এ কারণে সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। পানিবন্দী হয়ে পড়েছে বগুড়ার খাটিয়ামারি চরের কয়েক হাজার মানুষ। টানা বৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলে বান্দরবানের শতাধিক ঘরবাড়ি তলিয়ে গেছে।

টানা বৃষ্টি ও পাহাড়ী ঢলে নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় সিলেটে বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে। নতুন করে প্লাবিত হয়েছে জকিগঞ্জ ও কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার অর্ধশতাধিক গ্রাম। জেলার ১৩ উপজেলার মধ্যে ১০ উপজেলাতেই পানিবন্দী রয়েছেন কয়েক লাখ মানুষ।

মৌলভীবাজারে সার্বিক বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত রয়েছে। জেলার পাঁচ উপজেলার প্রায় তিন লাখ মানুষ এখনো পানিবন্দী। ঘরবাড়ি ও রাস্তাঘাটে পানি থাকায় মানুষের দুর্ভোগ বাড়ছে। এদিকে, কুলাউড়ায় বন্যার প্রায় একমাস হতে চললেও এখনো পানি নামছেনা। উপজেলার ৫৩টি স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসায় বন্ধ রয়েছে পাঠদান। ৬ জুলাই স্কুলের অর্ধ সাময়িক পরীক্ষা শুরুর কথা থাকলেও তা স্থগিত করা হয়েছে।

এদিকে, পাহাড়ি ঢল ও অতিবৃষ্টির কারণে বগুড়ার সারিয়াকান্দি পয়েন্টে যমুনা নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। সোনাতলা উপজেলার খাটিয়ামারি চরের কয়েকশ’ মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছে।

এছাড়া টানা বৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলে বান্দরবানের শতাধিক ঘরবাড়ি ডুবে গেছে। জেলার সাংগু নদীর পানি বেড়ে জেলা শহরের বেশ কয়েকটি এলাকা প্লাবিত হয়েছে। এদিকে, পাহাড়ের পাদদেশে ঝুঁকিপূর্ণ ভাবে বসবাস কারীদের নিরাপদ আশ্রয়ে সরে যেত মাইকিং করা হচ্ছে প্রশাসনের পক্ষ থেকে।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author

Leave a comment